মর্নিংসান২৪ডটকম Date:০৮-০৬-২০১৫ Time:৮:০১ অপরাহ্ণ


indexনিজস্ব প্রতিবেদক: লক্ষ্মীপুর কমলনগর উপজেলার চর জাঙ্গালীয়া গ্রামে পারভীন আক্তার নামে এক মহিলাকে একই গ্রামের আব্দুল মন্নান ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা বিজিএফ কার্ডের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষন করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পারভীন ওই উপজেলার চরজাঙ্গালীয়া গ্রামের হাসিমের বাপের বাড়ির অজি উল্যার মেয়ে।

স্থানীয় যুবলীগ নেতা মন্নান ২ বছর মেয়াদী বিজিএফ কার্ড করে দিবে বলে লোভ দেখায় এবং পারভীনের ঘরের পাশে বাগানে নিয়ে দেশীয় অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করে। এর পর তার সাথে পরকীয়া চলতে থাকলে পেটে সন্তান জন্ম নেয় । বর্তমানে পারভীন ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা

গর্ভের সন্তান নিয়ে এলাকায় কানাগুসা চলতে থাকলে পারভীন লোকজনকে বিষয়টি ফাঁস করে দেয়। নিরুপায় হয়ে পারভীন পুলিশ সুপার বরাবরে একটি অভিযোগ দায়ের করে।

অভিযোগের আলোকে ১৩৪৬নং স্মারকে ২৮মে’১৫ তারিখের প্রেরিত পত্রে অফিসার ইনচার্জ কমলনগরকে তদন্তের ভার দেওয়া হয়। বিষয়টি নবীর বাপের বাড়ির মন্নান টের পেয়ে ধর্ষিতা পারভীনের পরিবারের উপর আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। মন্নানের ভয়ে অসহায় অন্তস্বত্তা পারভীন শিশু আরেকটি কণ্যা সন্তান নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে।

চর জাঙ্গালীয়া গ্রামের স্থানীয় নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানায়, মন্নান এলাকার একটি আতঙ্ক সে সর্বদাই দেশীয় অস্ত্র হাতে নিয়ে ঘুরে বেড়ায়। তার ভয়ে ভূক্তভোগীসহ এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে সহকারী পুলিশ সুপার নাসিম মিয়া’র সাথে যোগাযোগ করলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পারর্ভীনের পেটে বাচ্চার বয়স প্রায় ৬ মাস উত্তীর্ণ হওয়ায় এ মূহুর্তে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা যাচ্ছে না। ধর্ষিতা পারভীনের বাচ্চা প্রসবের পর পরীক্ষা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। ধর্ষক মান্নানকে পুলিশী নজরে রাখা হয়েছে।

পারভীন সূত্রে জানা যায়, বিগত ৪ বছর পূর্বে সদর উপজেলার টুমচর এলাকায় জামালের সাথে সামাজিক ভাবে তার বিবাহ হয়। বিবাহের দেড় বছরের মাথায় তার সংসারে একটি কন্যা সন্তান আসলে স্বামী জামাল পারভীনকে রেখে অন্যত্র বিয়ে করে চলে যায়। পরে পারভীন কণ্যা সন্তান ফারিয়াকে নিয়ে বাপের বাড়ী চলে আসে।