চবি ছাত্রলীগের একাংশের সড়ক অবরোধ, যোগাযোগমন্ত্রীর গাড়ি আটকে ক্ষোভের কথা জানালেন

CU_barricade_bg_422225055চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আবারো ছাত্রলীগের দুই গ্র“প মুখোমুকি। মঙ্গলবার প্রতিপক্ষের ধাওয়ায় যোগাযোগমন্ত্রীর অনুষ্ঠানে অংশ নিতে না পারায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রেলগেইট এলাকায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে ছাত্রলীগের একাংশ। এসময় হামলা চালিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরের গাড়ি ভাংচুর করে তারা। মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
হামলাকারীরা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি অমিত কুমার বসু ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুমন মামুনের অনুসারী।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগাযোগমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে যাওয়ার চেষ্টা করে অমিত-সুমন অনুসারীরা। এসময় তাদের ভার্সিটি এক্সপ্রেস গ্র“পের কর্মীরা ধাওয়া দেয়।
এ ঘটনার জের ধরে সাড়ে তিনটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেলগেইট এলাকায় প্রায় ২০ মিনিট সড়ক সড়ক অবরোধ করে রাখে অমিত-সুমন অনুসারীরা। এসময় প্রক্টরের ব্যবহৃত গাড়িটি সড়কে দেখতে পেয়ে ভাংচুর চালায় তারা।
ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী এক ছাত্র জানান, বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর-এর গাড়িটি একজন সহকারী প্রক্টর নিয়ে রেলগেইট এলাকায় গেলে কিছু দুবৃর্ত্ত গাড়িটির উপর হামলা করে। কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ব্যাপারে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
সড়ক অবরোধকারী ছাত্রলীগর ২ নেতা জানান, বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরের উসকানিতে ছাত্রলীগ নামধারী শিবিরের গুপ্তচরেরা আমাদের নেতাকর্মীদের উপর হামলা করেছে। তারা আমাদেরকে অনুষ্ঠানে ঢুকতে দেয়নি। এর প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ করা হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে আমরা কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করবো।
এদিকে, সড়ক অবরোধ চলাকালে যোগাযোগমন্ত্রীকে বহনকারী গাড়িটিকে আটকে মন্ত্রীকে তাদের ক্ষোভের কথা জানান অবরোধকারীরা।