সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজির প্রতিবাদে চট্টগ্রামের ফলমন্ডির ব্যবসায়ীরা

সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজির প্রতিবাদে চট্টগ্রামের ফলমন্ডির ব্যবসায়ীরা
সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজির প্রতিবাদে চট্টগ্রামের ফলমন্ডির ব্যবসায়ীরা
সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজির প্রতিবাদে চট্টগ্রামের ফলমন্ডির ব্যবসায়ীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক:
বন্দরনগরীর বৃহত্তম ফলবাজার নগরীর স্টেশন রোডের ফলমন্ডির ব্যবসায়ীরা দু’ঘণ্টা দোকান-আড়ৎ বন্ধ রেখে সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজির প্রতিবাদ করেছেন ।নগরীর দুই কাউন্সিলরও তাদের বিক্ষোভে সংহতি জানাতে গিয়েছিলেন।

শনিবার সকালে নগরীর কোতয়ালি থানার স্টেশন রোডে ফলমন্ডিতে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় ব্যবসায়ীরা চাঁদাবাজির জন্য স্থানীয় দু’টি সন্ত্রাসী বাহিনীর পাশাপাশি পুলিশকেও অভিযুক্ত করেন। সমাবেশ থেকে চট্টগ্রাম ফল ব্যবসায়ী সমিতি রোববার দুপুর ২টায় ফলমন্ডিতে মানববন্ধনের ঘোষণা দিয়েছে । এছাড়া চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারের জন্য এক সপ্তাহের সময়ও বেঁধে দিয়েছেন তারা।

এর আগে শুক্রবার রাতে চাঁদা না দেয়ায় ফলমন্ডিতে ব্যবসায়ীদের ওপর হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। এতে আহত হন আবদুর রহমান নামে এক ফল ব্যবসায়ী। প্রতিবাদে রাত ১০টার দিকে আধঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে রাখেন ব্যবসায়ীরা।

এর ধারাবাহিকতায় শনিবার সকালে পাইকারি দোকান ও আড়ৎ মিলে প্রায় আড়াই’শ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখেন ফল ব্যবসায়ীরা। সকাল ১০টার দিকে কয়েক’শ ব্যবসায়ী, কর্মচারি-শ্রমিক রাস্তায় নেমে আসেন।

সমাবেশে তারেক সোলায়মান সেলিম পুলিশকে উদ্দেশ্য করে বলেন, যেসব সন্ত্রাসী-চাঁদাবাজ ফল ব্যবসায়ীদের হয়রানি করছে, সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে তাদের এক সপ্তাহের মধ্যে গ্রেপ্তার করুন।

এক সপ্তাহের মধ্যে সন্ত্রাসী-চাঁদাবাজাদের গ্রেপ্তার করা না হলে ব্যবসায়ীদের নিয়ে তিনি রাজপথে নামবেন বলে ঘোষণা দেন সরকারদলীয় এই কাউন্সিলর।

সমাবেশে কাউন্সিলর সলিমউল্লাহ বাচ্চু বলেন, ব্যবসায়ীদের উপর কোন আঘাত-অত্যাচার সহ্য করা হবেনা। কোন সন্ত্রাসী, মাস্তান যদি আবারও ফলমন্ডিতে এসে ব্যবসায়ীদের কাছে চাঁদা দাবি করে তাদের এই ফলমন্ডিতেই ধরে শায়েস্তা করা হবে। যে রাজনৈতিক দলের পরিয় সন্ত্রাসীরা দিক না কেন, তাদের প্রতিহত করা হবে। সমাবেশে ফল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজী মো.আলমগীর রোববার দুপুর ২টায় মানববন্ধন কর্মসূচী ঘোষণা করেন।

সভাপতি আব্দুল মালেক সন্ত্রাসী-চাঁদাবাজদের এক সপ্তাহের মধ্যে গ্রেপ্তার করার দাবি জানান। ফলমন্ডিতে চাঁদাবাজি বন্ধের দাবি জানিয়ে তিনি পুলিশ বাহিনীর প্রতি সহযোগিতা কামনা করেন।

কয়েকজন ব্যবসায়ী অভিযোগ করেন, স্থানীয় হাতকাটা ইদু বাহিনী এবং ছাত্রলীগ নামধারী ফয়সাল বাহিনীর সন্ত্রাসীরা চাঁদার জন্য নিয়মিত ফল ব্যবসায়ীদের উত্যক্ত করে। তারা ফল ব্যবসায়ীদের জিম্মি করে রেখেছে। সিআরবি পুলিশ ফাঁড়ির এস আই মো.হারুন এসব সন্ত্রাসীদের দিয়ে ফল ব্যবসায়ীদের হয়রানি করছেন।
চট্টগ্রাম ফল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আব্দুল মালেকের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন স্থানীয় আলকরণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তারেক সোলায়মান সেলিম, এনায়েত বাজার ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সলিমউল্লাহ বাচ্চু, সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজী মো.আলমগীর, সহ-সভাপতি আলী আব্বাস খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুল আলম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন, ফল ব্যবসায়ী জাফর আহমেদ এবং শহীদুল আলম।
দুপুর ১২টার দিকে প্রতিবাদ সমাবেশ শেষ করে তারা মিছিল করেন। পরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হয়।