স্তন ক্যানসারে মৃত্যুর হার ১৬.৯ শতাংশ

 স্তন ক্যানসারে মৃত্যুর হার ১৬.৯ শতাংশ
স্তন ক্যানসারে মৃত্যুর হার ১৬.৯ শতাংশ

চট্টগ্রাম অফিস :
বাংলাদেশে প্রতি বছর স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হয় ১৪ হাজার ৮৩৭ জন নারী, মারা যায় সাত হাজার ১৪২ জন। নারী ক্যানসার রোগীদের মধ্যে স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত ২৩ দশমিক ৯ শতাংশ। স্তন ক্যানসারে মারা যায় ১৬ দশমিক ৯ শতাংশ।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে “বাংলাদেশ স্তন ক্যানসার সচেতনতা ফোরাম” আয়োজিত মিট দ্য প্রেস অনুষ্ঠানে সংগঠনটির সমন্বয়কারী ডা. মো. হাবিবুল্লাহ তালুকদার রাসকিন এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, দেশেন জনসংখ্যার ১৫ কোটি ২৪ লাখ আট হাজার ধরে তাদের এই অনুমিত হিসাব। তাদের হিসাবে প্রতিবছর সব মিলিয়ে মোট এক লাখ ২২ হাজার ৭০০ মানুষ নতুন করে ক্যানসারে আক্রান্ত হয়, মারা যায় ৯১ হাজার ৩০০ ক্যানসার রোগী।

মূল প্রবন্ধে বলা হয়, সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও মহিলাদের মধ্যে এক নম্বর ক্যানসার স্তন ক্যানসার। নারী-পুরুষ মিলিয়ে হিসাব করলেও স্তন ক্যানসারের স্থান শীর্ষ। প্রতি বছরে নতুন করে আক্রান্তের হার এবং মৃত্যুর হার উভয় ক্ষেত্রে।

রাসকিন বলেন, বিশ্বব্যাপী অক্টোবরকে স্তন ক্যানসার সচেতনতা মাস হিসেবে পালন করা হয়। এই মাসে আমাদের দেশেও বিভিন্ন সংগঠন কিছু কর্মসূচি পালন করে আসছে, বিচ্ছিন্নভঅবে।

২০১৩ সালে ১০ অক্টোবর বাংলাদেশে স্তন ক্যানসার সচেতনতা দিবস হিসেবে পালিত হয়। গঠিত হয় “বাংলাদেশ স্তন ক্যানসার সচেতনতা ফোরাম”। সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনগুলোর একটা প্ল্যাটফরম হিসেবে এই ফোরাম কাজ করছে। আশাতীত সাড়া পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে প্রতি বছর এই দিনটি পালনের সিদ্ধান্ত হয়। সারা মাসব্যাপী অনুষ্ঠান থাকবে। ফোরামের মাধ্যমে সমন্বিতভাবে অনুষ্ঠানগুলো জনসম্মুখে তুলে ধরা হবে।
আগামী ৩১ অক্টোবর শনিবার সকাল ৯টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে থেকে পিঙ্ক রোড শো-গোলাপী সড়ক শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।

কর্মসূচি সম্পর্কে ফোরামের সমন্বয়ক বলেন, ১১ থেকে ৩০ অক্টোবর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কর্মস্থল ও এলাকাভিত্তিক সচেতনতামূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন হবে। আগামী ৩১ অক্টোবরের গোলাপী সড়ক শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হবে। গোলাপী পোশাক বা রিবন পড়ে আপনিও যোগ দিন। খোলা পিকাপে চড়ে লিফলেট বিতরণ করতে আমরা যাবো উত্তরায়। ১৫ টি স্থানে আমরা আধা ঘণ্টা করে কথা বলবো।

জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে শাহবাগ, বাংলামোটর-কারওয়ান বাজার-ফার্মগেট হয়ে মহাখালী-কাকলী-খিলক্ষেত হয়ে বিমানবন্দর, জসিমউদ্দিন রোড-রাজলক্ষী-আজমপুর পর্যন্ত এই গোলাপী সড়ক শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হবে।

তিনি বলেন, সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে যার পক্ষে যেভাবে সম্ভব প্রচার-প্রচারণায় অংশ নিন। আমাদের বড় কোনো স্পন্সর নেই। আপনিই হতে পারেন স্পন্সর। পোস্টার, লিফলেট, ব্যানার, ফেস্টুন প্রিণ্ট করে আমাদেরকে দিন। নিজেই টাঙ্গিয়ে দিন আপনার বাসস্থান, কর্মস্থল, সম্ভব হলে রাস্তার মোড়ে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন ক্যানসার সোসাইটির মহাসচিব অধ্যাপক ডা. শেখ গোলাম মোস্তফা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অনকোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক সারওয়ার আলম, গাইনি অনকোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. সাবেরা খাতুন, অধ্যাপক ডা. আশরাফুন্নেসা প্রমুখ।