নগরীতে তিন ভুয়া ডাক্তারকে জরিমানা

নগরীতে তিন ভুয়া ডাক্তারকে জরিমানা
নগরীতে তিন ভুয়া ডাক্তারকে জরিমানা
নগরীতে তিন ভুয়া ডাক্তারকে জরিমানা

চট্টগ্রাম অফিস: ডাক্তার শব্দটি দেখেই রোগীরা পরম আশ্বাসে আসেন চিকিৎসা সেবা নিতে। কিন্তু সেই ডাক্তারের বিদ্যার দৌড় যদি এসএসসি পর্যন্তও না যায়, তাহলেতো অবাকই হতে হয়।

শনিবার ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে নগরীর সাগরিকা মুরগীর ফার্ম এলাকায় এমনই এক ডাক্তারের দেখা মিলেছে। ডা. সুজন দেবনাথ (আপন) নামে ওই ডাক্তার এসএসসি পাশ না করেই দিব্যি ডাক্তার সেজে রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন।

রোগীদের সঙ্গে এমন প্রতারণার অপরাধে সুজন দেবনাথ (আপন) সহ মোস্তফা কামাল ও প্রদীপকান্তি দাশ নামে তিন ভূয়া ডাক্তারকে জরিমানা করেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট রুহুল আমিনের নেতৃত্বে পরিচালিত আদালতে তিন ভূয়া ডাক্তারকে ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা ও তিনটি ফার্মেসিকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট রুহুল আমিন জানান, নগরীর অলংকার মোড় ও সাগরিকা রোডের ১নং গলিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অনেকক্ষণ জিজ্ঞাসাবদের পর সুজন দেবনাথ স্বীকার করে সে এসএসসি পাশও করেনি কিংবা তার নামের পাশে নেই এমবিবিএস বা বিডিএস ডিগ্রি। শুধু রোগী টানতেই রয়েছে এসব ডাক্তার পদবী। দুই মাস হল সে এ পেশায় এসেছে। একইভাবে এমবিবিএস ডিগ্রি না থাকার পরেও ডাক্তার পদবী ব্যাবহার করে রোগীদের চিকিৎসা করছিল মোস্তফা কামাল ও প্রদীপকান্তি দাশ।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল আইন- ২০১০ এর ২৯ (২) ধারা অনুযায়ী সুজন দেবনাথকে ১ লাখ টাকা, মোস্তফা কামালকে ২০ হাজার টাকা ও প্রদীপ কান্তি দাশকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। তাদের থেকে মুচলেকা নেয়া হয় ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের উপস্থিতিতে তাদের চেম্বার বন্ধ করে দেয়া হয়।

একই অভিযানে সরকারি ঔষধ বিক্রি, ফিজিশিয়ান স্যাম্পল বিক্রি, ভারতীয় ঔষধ বিক্রি ও ফ্রিজে মাংসের সঙ্গে ঔষধ সংরক্ষণের অপরাধে জনতা ফার্মেসিকে ৫ হাজার টাকা, সৌদিয়া ফার্মেসিকে ১০ হাজার টাকা ও লোকনাথ ফার্মেসিকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।