২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

বেসরকারি স্কুল-কিন্ডারগার্ডেনেও বাণিজ্য বন্ধ করতে হবে : নগর ছাত্রলীগ

Wednesday, 25/11/2015 @ 11:09 pm

বেসরকারি স্কুল-কিন্ডারগার্ডেনেও বাণিজ্য বন্ধ করতে হবে : নগর ছাত্রলীগ

বেসরকারি স্কুল-কিন্ডারগার্ডেনেও বাণিজ্য বন্ধ করতে হবে : নগর ছাত্রলীগ

চট্টগ্রাম অফিস : নগর ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ এক বিবৃতিতে বেসরকারি স্কুল ও কিন্ডারগার্ডেন সমূহে অভিন্ন ভর্তি ফি চালু করে পুন: ভর্তি ফি ও বৃত্তি বাণিজ্য বন্ধ করার জন্য আহবান জানিয়েছেন। এব বিবৃতিতে নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি বুধবার এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, বছর শুরুর প্রারম্ভেই নগর জুড়ে বেসরকারী বিদ্যালয়, কিন্ডারগার্ডেন স্কুল গুলোর রমরমা বাণিজ্যিক প্রচারণা এরই মধ্যে সচেতন শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবক সমাজকে শংকিত করে তুলেছে। সরকারি স্কুলের অপ্রতুল্যতার সুযোগে বাহারি রঙ্গে ঢঙ্গে আমাদের অভিভাবক মহলকে এ সকল বাণিজ্যিক স্কুল, কিন্ডারগার্ডেন গুলো প্রলুব্ধ করতে এরই মাঝে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি বিবৃতিতে বলেন, ১৯৬২ সালের রেজিষ্ট্রেশন অব প্রাইভেট স্কুল অর্ডিনেন্স আইনের অধীনে প্রণয়নকৃত ২০১১ সালের বিধিমালায় ভর্তি ফি নবায়ন ও পুন: ভর্তির নামে কোন অর্থ অনুদান হিসেবে আদায় করা যাবে না মর্মে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও চট্টগ্রাম শহরের বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এই নির্দেশনার তোয়াক্কা না করে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের জিম্মি করে অর্থ লুটপাট করে থাকে। তাই ভর্তি কার্যক্রম শুরুর আগেই সংশি¬ষ্ট প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও মাননীয় জেলা প্রশাসনকে ভর্তি কার্যক্রমে পুন: ভর্তি ফি বিষয়টিতে তীক্ষ্ম দৃষ্টি প্রদানের আহ্বান করছি। এছাড়াও বেসরকারী স্কুল ও কিন্ডারগার্ডেন স্কুলগুলো ভর্তি ফি’র সঙ্গে পাঠাগার ফি, রাজস্ব ফি, জামানত ফি, রশিদ বই, বার্ষিকী ফি, স্কাউট, উন্নয়ন ফি, সহ হরেক নামের ফি ভর্তি ফি কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত করে ছাত্র ছাত্রীদের স্কুলে ভর্তিকালীন সময়ে “ভর্তি ফি” হিসেবে আদায় করছে। যা সম্পূর্ণ বাণিজ্যিকায়ন শিক্ষা কার্যক্রম হিসেবে পরিগণ্য। সুতরাং সকল বেসরকারি স্কুল ও কিন্ডারগার্ডেনে অভিন্ন ভর্তি ফি চালু করতে হবে। এছাড়াও সমাপনী পরীক্ষার পর নগরীর আনাচে কানাচে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ভূইফুড় সংগঠন মেধা বৃত্তি পরীক্ষার নামে শিক্ষার্থীদের সাথে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা লোপাটে ব্যস্ত থাকে। মেধা বৃত্তির নামে ফরম বিক্রি করা তাদের মূল উদ্দেশ্যে হলেও এই বিষয়ে শিক্ষা প্রশাসনের কোন সুদৃষ্টি আমরা লক্ষ্য করছিনা। অনতিবিলম্বে সকল বেসরকারী স্কুল ও কিন্ডারগার্ডেনে অভিন্ন ভর্তি ফি চালু করে পুন: ভর্তি ফি বন্ধ ও বৃত্তি বাণিজ্য বন্ধ করে শিক্ষক্ষবান্ধব সমাজ গড়তে সকলকে আহ্বান জানান।