বিপিএলে সব ম্যাচ হবে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে

বিপিএলে সব ম্যাচ হবে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে
বিপিএলে সব ম্যাচ হবে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে
বিপিএলে সব ম্যাচ হবে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে

চট্টগ্রাম অফিস :
বিপিএলে সবগুলো ম্যাচ হবে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। অবশ্য এ মাঠে এবারই প্রথম বিপিএল আয়োজন হচ্ছে। আগের দুই আসর বসেছিল এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে। বিপিএলের দ্বিতীয় আসরে ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস ও চিটাগং কিংসের আলোচিত ম্যাচটি পাতানো হয়েছিল চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে। সেই চট্টগ্রামেই ফিরেছে বিপিএলের তৃতীয় আসর।

সোমবার দুপুর ২টায় স্বাগতিক চিটাগং ভাইকিংস ও বরিশাল বুলসের ম্যাচ দিয়ে বন্দরনগরীতে বিপিএল উৎসব শুরু হবে।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) যথেস্ট সোচ্চার বিপিএল নিয়ে। কোনোভাবেই বিপিএলের রঙ যেন একটুও বিবর্ণ না হয় সেজন্য বিসিবির দুর্নীতি দমন বিভাগ প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে। আন্তর্জাতিক ম্যাচের থেকে ঘরোয়া এ লিগগুলোতে সবচেয়ে বেশি চোখ থাকে জুয়াড়িদের। এরই মধ্যে ভারতীয় এক নাগরিককে সন্দেহ করে পুলিশে দিয়েছে বিসিবির নিজস্ব নিরাপত্তা দল।

চট্টগ্রামে তিক্ত অভিজ্ঞতা থাকায় চট্টগ্রামকে বাড়তি নজরে রেখেছে বিসিবি। ক্রিকেটারদের হোটেল, স্টেডিয়াম, একাডেমি মাঠ সবকিছুতেই বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে সংশ্লিষ্টরা। ক্রিকেটারদের আশে-পাশে অপরিচিত কাউকেই ঘেঁষতে দিচ্ছে না নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকা সদস্যরা।

অংগ্রহণকারী ছয় দলের পাঁচটি এরই মধ্যে চট্টগ্রামে পৌঁছে গেছে। সোমবার সকাল এগারোটায় চট্টগ্রামে পৌঁছার কথা ঢাকা ডায়নামাইটসের।

ওই ম্যাচে চিটাগং কিংস আগে ব্যাটিং করে ১৪২ রান করে। ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটরস করে ৮৮ রান। চিটগং কিংসের জন্যে ম্যাচটি ছিল খুব গুরুত্বপূর্ণ। তাই ঢাকাকে কোনো না কোনো ভাবে ম্যানেজ করে চিটাগং কিংস ম্যাচটি জিতে নেয়। ফিক্সিংয়ে জড়িয়ে পড়ে দেশের সেরা ক্রিকেট তারকা মোহাম্মদ আশরাফুল।