খ্রিস্টধর্মের ইতিহাসে নতুন মোড় নিল

খ্রিস্টধর্মের ইতিহাসে নতুন মোড় নিল
খ্রিস্টধর্মের ইতিহাসে নতুন মোড় নিল
খ্রিস্টধর্মের ইতিহাসে নতুন মোড় নিল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
রোমান ক্যাথলিক চার্চের প্রধান পোপ ফ্রান্সিস এবং রাশিয়ান অর্থোডক্স চার্চের প্রধান প্যাট্রিয়ার্ক কিরিল প্রায় হাজার বছর পর দুইজন কিউবায় মুখোমুখি হয়েছেন।এরপর পরস্পরকে অভিবাদন জানালেন, কথা বললেন এবং যৌথ সাংবাদিক সম্মেলন করলেন।
এর ফলে খ্রিস্টধর্মের ইতিহাসে তা আজ অন্য মোড় নিল।

কেন এই বৈঠক, তা পরিষ্কার হলো যৌথ বিবৃতিতে। মধ্যপ্রাচ্য থেকে দক্ষিণ আফ্রিকা- খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের উপর নিপীড়ন বন্ধের আর্জি এক যোগে জানালেন দুই ভিন্ন শিবিরের খ্রিস্টান ধর্মগুরু।

বিবৃতিতে তারা বলেছেন, আমরা আশা করি, আমাদের এই বৈঠক ঈশ্বরের ইচ্ছেয় ইতিবাচক ভূমিকা নেবে আমাদের ঐক্যের পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্য। মধ্যপ্রাচ্য এবং উত্তর আফ্রিকার বহু দেশে আমাদের খ্রিস্টান ভাই বোনেদের পরিবার, গ্রাম, শহর পুরোপুরি ধ্বংস করে দেয়া হচ্ছে। বর্বরের মতো তাঁদের ধর্মস্থান তছনছ করা হচ্ছে, লুট করা হচ্ছে। ধ্বংস করা হচ্ছে সৌধ।

এই মুহূর্তে পোপ ফ্রান্সিস এবং প্যাট্রিয়ার্ক কিরিল আলাদা আলাদাভাবে লাতিন আমেরিকার বিভিন্ন দেশ সফরে আছেন। তার ফাঁকেই ঐতিহাসিক বৈঠকে দু’জন মিলিত হলেন হাভানায়। কিন্তু কিউবাই কেন? আসলে রোম, মস্কো, ইস্তানবুলের মতো দুই চার্চের সেন্টারগুলির বাইরে, এবং দুই চার্চের প্রভাবাধীন দেশগুলোর বাইরে একটা নিরপেক্ষ জায়গা হিসেবেই বেছে নেয়া হয়েছিল হাভানাকে।

সারা বিশ্বের কাছে সাহায্য প্রার্থনা করেছেন দুই খ্রিস্টান ধর্মগুরু।