গভর্নরের পদ থেকে ড. আতিউর রহমানের পদত্যাগ

গভর্নরের পদ থেকে ড. আতিউর রহমানের পদত্যাগ
গভর্নরের পদ থেকে ড. আতিউর রহমানের পদত্যাগ

ডেস্ক রিপোর্ট:
বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের পদ থেকে ড. আতিউর রহমান পদত্যাগ করেছেন।
যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্ক থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮০০ কোটি টাকা লোপাটের ঘটনায় গভর্নর পদত্যাগ করেন এই গভর্নর।এদিকে, আতিউর রহমান গভর্নরের পদ থেকে পদত্যাগ করায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের ডাকা দুপুরের সংবাদ সম্মেলন স্থগিত করা হয়েছে।

কোটি টাকা লোপাটের বিষয়টি নিয়ে দেশজুড়ে আলোচনার মধ্যে মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে পদত্যাগপত্র জমা দেয়ার তথ্য নিশ্চিত করেছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য সচিব এহসানুল করিম।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী চাইলে পদত্যাগ করবেন বলে জানিয়েছিলেন আতিউর রহমান। সে অনুযায়ী বেলা পৌনে ১১টার দিকে পদত্যাগ প্রসঙ্গে আলোচনা করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পৌঁছান তিনি।

এর আগে মঙ্গলবার সকালে গুলশানে গভর্নর হাউজে অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের ড. আতিউর রহমান বলেন, ‘নৈতিক কারণে আমি যেকোনো মুহূর্তে পদত্যাগ করতে প্রস্তুত আছি। এরই মধ্যে আমার পদত্যাগপত্র তৈরি করে ফেলেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ পেলেই তার হাতে আমি পদত্যাগপত্র তুলে দেব।’

ড. আতিউর রহমান পদত্যাগ করার পর বাংলাদেশ ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত গভর্নর হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ডেপুটি গভর্নর ড. আবুল কাশেমকে।

সম্প্রতি নিউইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে থাকা বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে ১০০ মিলিয়ন ডলার বা প্রায় ৮০০ কোটি টাকা চুরি হয়। পরে জানা যায়, এর মধ্যে ৮১ মিলিয়ন ডলার ফিলিপাইনের আরবিসি ব্যাংকের একটি শাখার ৫টি অ্যাকাউন্টে স্থানান্তরিত হয়েছে। এ অর্থ পরে ফিলিপাইনের তিনটি ক্যাসিনো হয়ে হংকং-এ চলে গেছে।

বিশ্বের ইতিহাসে অন্যতম বড় এ ব্যাংক চুরির ঘটনা আলাদাভাবে তদন্ত করছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তদন্তে সহায়তা করছে সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ক প্রতিষ্ঠান ওয়ার্ল্ড ইনফরম্যাটিক্স ও ফায়ারআই। সহায়তার প্রস্তাব দিয়েছে এফবিআই ও মার্কিন বিচার বিভাগ।