নান্দনিক সৌন্দর্যের দেশ ভূটান

নান্দনিক সৌন্দর্যের দেশ ভূটান
নান্দনিক সৌন্দর্যের দেশ ভূটান

চট্টগ্রাম অফিস: আকর্ষণীয় এবং নান্দনিক সৌন্দর্যের দেশ ভুটান। মনোরম পাহাড়ের পরিপাটি শহর দেখে ভরে যেতে পারে আপনার মন। এশিয়ার ‘শান্তিপ্রিয় দেশ’ মনে করা হয় ভুটানকে। দেশটির অবস্থান হিমালয় পর্বতমালার কোলে। সুউচ্চ পর্বতশ্রেণী দ্বারা আবৃত প্রকৃতি এবং অসংখ্য ঝরনা সেখানকার অন্যতম শোভা। স্থানীয় সংস্কৃতিও বেশ সমৃদ্ধ। রয়েছে বিচিত্র সব প্রাণীর অবাধ বিচরণ।

অধিকন্তু দেজং (প্রাসাদদুর্গ), বৌদ্ধ মন্দির ও পর্বতের গায়ে অসংখ্য গুহা সেখানকার গৌরবময় প্রাচীন ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে রয়েছে। যে কারণে ভুটান এই অঞ্চলের অন্যতম পর্যটনসমৃদ্ধ দেশ। দেশটির পশ্চিমে হিমালয়কন্যা নেপাল, উত্তরে তিব্বত এবং পূর্বে ভারতের অরুণাচল প্রদেশ।

কীভাবে যাবেন:
ভুটান ভ্রমণের জন্য প্রথমেই আপনার প্রয়োজন হবে ভারতীয় ট্রানজিট ভিসার, যা কিনা ঢাকার গুলশান (এবং এখন অন্যান্য শাখাতেও পাওয়া যায়, যেমন চট্টগ্রাম) শাখা থেকে আপনি করে নিতে পারেন। এরপর আপনাকে শ্যামলী বাসের টিকেট আগেই করে রাখতে হবে (বাসের টিকেট ট্রানজিট ভিসার কাগজপত্রের সঙ্গে জমা দিতে হবে)। আরামবাগ থেকে বাস ছাড়ে রাত ৮টায় এবং কল্যাণপুর থেকে ৯টায়।

বাস বুড়িমারী সীমান্তে পৌঁছাতে সময় নেবে ১০ থেকে ১১ ঘণ্টা। তার মানে পরদিন সকাল ৭-৮টা। বুড়িমারী ইমিগ্রেশন অফিস খোলে সকাল ৯টায়। বাস আগে পৌঁছলে সামটাইমস আবাসিক হোটেলে ফ্রেশ ও রেস্ট নিতে পারেন। জনপ্রতি ২০০ টাকা। কিন্তু চারজন হলে পড়তে পারে ৪০০ টাকা। বুড়িমারী ইমিগ্রেশন অফিসে কাজ শেষ হতে কিছুটা সময় লাগে। অনেকক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়। ইমিগ্রেশন অফিসের প্রয়োজনীয় কাজ শেষ করে পায়ে হেঁটে প্রবেশ করুন ভারতে।

চ্যাংড়াবান্ধা (ভারত) ইমিগ্রেশন অফিসে কাজ শেষ হতে তেমন সময় লাগে না, তারা দ্রুত কাজ করেন। ইমিগ্রেশনের কাজ শেষ করে ডলার বা টাকা রুপিতে এক্সচেঞ্জ করে নিন। ও হ্যাঁ, ডলার এক্সচেঞ্জের রসিদ নিয়ে নেবেন, পরে দরকার পড়তে পারে আপনার। ইমিগ্রেশন আর ডলার এক্সচেঞ্জের কাজ শেষ করে উঠে পড়ুন আপনার জন্য অপেক্ষারত চ্যাংড়াবান্ধা ইমিগ্রেশন অফিসের পাশে শ্যামলীর বাসটিতে। অথবা ট্যাক্সিতে করে চ্যাংড়াবান্ধা টু জয়গাঁও ইন্ডিয়ান ইমিগ্রেশন অফিসে (ভুটান সীমান্তের কাছে) যেতে পারেন। ভাড়া পড়বে ১০০০-১৫০০ রুপির মতো। আপনি শ্যামলী বাসেই যেতে পারেন।

তারপর ময়নাগুরি নামক জায়গায় নেমে একটা লোকাল বাসে উঠে সোজা হাসিমারা। এখানে ভাড়া জনপ্রতি ৫০ রুপি। সেখান থেকেই অটোতে জয়গাঁও ইন্ডিয়ান ইমিগ্রেশন অফিস (ভুটান সীমান্তের কাছে) ভাড়া জনপ্রতি সাত রুপি। ইন্ডিয়ান ইমিগ্রেশন অফিস থেকে ডিপার্চার/এক্সিট (সব ঠিক থাকলে সময় তেমন লাগে না) সিল লাগিয়ে সোজা ভুটান। ভুটান ইমিগ্রেশন অফিস ফুন্টশোলিংয়ে অবস্থিত জাস্ট ভুটান গেটের পাশেই। এখান থেকে অন-অ্যারিভ্যাল ভিসা নিতে হবে, এখান থেকে শুধু থিম্পু আর পারো’র অনুমতি পাওয়া যাবে। পুনাখা, হ্যাঁ ভ্যালী, বুমথাং ও অনন্য জায়গার অনুমতি পরে থিম্পু থেকে নিতে হবে আপনাকে।

মনে রাখবেন, ফুন্টশোলিং ইমিগ্রেশন অফিস শুধু বাংলাদেশি আর বিদেশিদের জন্য সকাল ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকে। কোনো সরকারি বন্ধ নেই। বাংলাদেশিদের ভুটানিরা খুব সম্মান করেন। তবে ইমিগ্রেশন অফিসে আমাদেরকে বলেছিলেন, কিছু বাংলাদেশিরা শুধু পাসপোর্টে সিল লাগানোর জন্য অনেক দিনের ভিসা নেয় আর এক-দু’দিন পরই ফিরে আসে। এটা খুবই খারাপ। আমরাই ওদের বিশ্বাস নষ্ট করছি।

ফুন্টশোলিং ভুটান ইমিগ্রেশন অফিস থেকে অন-অ্যারিভ্যাল ভিসা নিয়ে আপনি ৪ সিটের একটি ট্যাক্সি ভাড়া করতে পারেন ১,৮০০ রুপি দিয়ে। যা সোজা চলে যায় থিম্পু। দর-দাম করে গাড়ি ভাড়া করতে হবে আপনাকে। আপনি ড্রাইভার নিতে পারেন নেপালি, ভুটানি। তারা খুব ভালো, পরবর্তীকালে আপনি যে ক’দিন ভুটানে থাকবেন এদের ট্যাক্সিতে করে আপনি ঘুরতে পারেন। যে ক’দিন আপনি থাকবেন সারাদিনের জন্য ওদের গাড়িটি আপনি নিতে পারেন। যার মূল্য পড়তে পারে আনুমানিক ১১ হাজার রুপি। এরা খুব ভালো ইংরেজি আর হিন্দি জানে। তাছাড়া তারা ড্রাইভার ও গাইড হিসেবে খুবই মিশুক ও বন্ধুত্বপূর্ণ।

মনে রাখবেন, ফুন্টশোলিং থেকে থিম্পু বাসেও যেতে পারবেন। শেষ বাসের সময় বিকেল ৪টা ৩০ মিনিট, ভাড়া ২৪০ রুপি, সময় লাগবে পাঁচ-ছয় ঘণ্টা। ও ভালো কথা, আপনি আগে থাকেই একটা হোটেলে রুম বুক করে রাখতে পারেন। মনে রাখা ভালো, ভুটানে সব দোকান, হোটেল, রেস্টুরেন্ট সবকিছুই রাত সাড়ে ৮টা থেকে ৯টার মধ্যে বন্ধ হয়ে যায়। তাই হোটেল বা রুম ঠিক আর ডিনার না করে নিলে খবর আছে।

থাকবেন কোথায়:
ভুটানে দামি, কমদামি সব ধরনেরই হোটেল আছে। কিন্তু হোটেলে অবশ্যই দামাদামি করে উঠবেন। যেমন- ৭০০-৮০০ রুপি থেকে ১৫ হাজার রুপি পর্যন্ত। আপনি সর্বনিম্ন ৮০০ রুপি আর সর্বোচ্চ ১,৫৪০ রুপি দামের হোটেলে থাকতে পারেন। সবগুলো হোটেলই নিশ্চিন্ত নিরাপদ।

ভুটানে যা দেখবেন
থিম্পু: সকালে ঘুম থেকে উঠে আপনি ৭টায় প্রস্তুত হয়ে হোটেল থেকে বের হতে পারেন ৮টার মধ্যে। তাড়াতাড়ি নাস্তা করে পুরো থিম্পু ঘুরে দেখতে পারেন। কিন্তু মজার ব্যাপার, কোনো রেস্টুরেন্টই সাড়ে ৯টা-১০টার আগে খোলে না। নাস্তা তৈরি হতে হতে সাড়ে ১০টা। যা হোক, নাস্তা করে আপনি বের হতে পারেন। এরপর ট্যাক্সি নিয়ে পুরো থিম্পু দেখতে পারেন, সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত পুরো থিম্পুর আশপাশে ঘুরতে পারেন।

থিম্পুতে সাইট সিইংয়ের জন্য উল্লে­খযোগ্য ও দর্শনীয় স্থানগুলো বুদ্ধ দর্দেনমা স্ট্যাচু, সীমতখা ডিজং, ন্যাশনাল তাকিন সংরক্ষিত চিড়িয়াখানা, কিংস মেমোরিয়াল চড়টেন, তাসিছ ডিজং, পার্লামেন্ট হাউজ, রাজপ্রাসাদ, লোকাল মার্কেট, ন্যাশনাল স্কুল অব আর্টস, ন্যাশনাল লাইব্রেরি, বিবিএস টাওয়ার ছাড়া আরো অনেক কিছুই।

পুনাখা: আপনার উদ্দেশ্য পুনাখা হতে পারে। মনে রাখা ভালো পুনাখা, হাভেলি, বুম্থাং এই জায়গাগুলোতে যেতে থিম্পু ইমিগ্রেশন অফিস থেকে অনুমতি নিতে হয়। কিন্তু কোনো কারণে যদি সরকারি ছুটির দিন হয়, ইমিগ্রেশন অফিস বন্ধ থাকে। তাই আপনি চলে যেতে পারেন পারোতে। মনে করে দেওয়া ভালো থিম্পু থেকে পারোর রাস্তা অসম্ভব রকমের সুন্দর। নিশ্চিত বলতে পারি আপনি এক মুহূর্তের জন্য আপনার চোখ বন্ধ রাখতে পারবেন না। পারো শহরে পৌঁছার পর হোটেল ঠিকঠাক করে ফ্রেশ হয়ে উদ্দেশ্য ঠিক করতে পারেন টাইগার নেস্টে ওঠার। পারো শহর থেকে টাইগার নেস্টের ট্যাক্সি স্ট্যান্ড বা পার্কিং প্লেসে যেতে সময় লাগবে প্রায় ৩০-৪৫ মিনিটের মতো। আর ট্যাক্সি স্ট্যান্ড কা পার্কিং প্লেস থেকে টাইগার নেস্টে পায়ে হেঁটে উঠতে সময় লাগবে প্রায় আড়াই থেকে তিন ঘণ্টা। যেতে কষ্ট আছে, কিন্তু অনুভূতি সেই রকম, না গেলে বোঝানো যাবে না। পায়ে হেঁটে উঠতে কষ্ট হলে ঘোড়ার ব্যবস্থা আছে। টাইগার নেস্টের বেজক্যাম্প পর্যন্ত ঘোড়ায় যাওয়া যাবে। খরচ পড়বে জনপ্রতি ৬০০ রুপি/ভুটানিজ গুল্ট্রুম। তারপর বিকেলটা কাটাতে পারেন অসম্ভব সুন্দর আর কাচের মতো স্বচ্ছ পানির পারো নদীর ধারে এবং রাতে পারো শহরেই থাকতে পারেন। পরের দিন সকাল সকাল বের হয়ে পারোর আর বাকি অসাধারণ সুন্দর জায়গাগুলো দেখতে পারেন। যেমন- কিচু মনাস্টেরি, এয়ারপোর্ট ভিউ পয়েন্ট, ন্যাশনাল মিউজিয়াম/তা-ডিজং, পারো ডিজং, চেলে-লা-পাস ইত্যাদি।

প্লান রাখুন বিকেলের মধ্যে থিম্পুতে পৌঁছে যেতে এবং ইমিগ্রেশন অফিস থেকে পুনাখা যাওয়ার জন্য অনুমতি নিয়ে রাখতে পারেন। তারপর রাতে থিম্পুতেই থাকতে পারেন। পরদিন খুব সকালে ঘুম থেকে উঠে রওনা দিতে পারেন পুনাখার উদ্দেশ্যে। নাস্তা করতে পারেন পথে। দুপুরের মধ্যে পৌঁছে যেতে পারেন পুনাখাতে। পথে অনেক জায়গায় থেমে থেমে অনেক অনেক ছবি নিতে পারেন আপনি। আবার বিকেলে রওনা দিতে পারেন থিম্পুর উদ্দেশে এবং রাতে থিম্পুতে থাকতে পারেন।

পুনাখার উল্লেখযোগ্য চমৎকার যে জায়গাগুলো দেখলেই নিশ্চিত করে বলতে পারি মন ভরে যাবে। তা হলো দোচু-লা-পাস, পুনাখা ডিজহং, আর্চারি গ্রাউন্ড ইত্যাদি।