মর্নিংসান২৪ডটকম Date:০৬-০৮-২০১৬ Time:৫:৪১ অপরাহ্ণ


মনোরম সমুদ্রসৈকত আর বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থাপত্যের লীলাভূমি 'গোয়া'

মনোরম সমুদ্রসৈকত আর বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থাপত্যের লীলাভূমি ‘গোয়া’

নিউজ ডেস্ক: গোয়া আয়তনে ভারতের ক্ষুদ্রতম এবং জনসংখ্যার হিসেবে ভারতের চতুর্থ ক্ষুদ্রতম অঙ্গরাজ্য কিন্তু এখানকার মানুষের মাথাপিছু আয় বেশি। এটি ভারতের পশ্চিম উপকূলে কোঙ্কণ নামের অঞ্চলে অবস্থিত। গোয়ার উত্তরে মহারাষ্ট্র, পূর্বে ও দক্ষিণে কর্ণাটক এবং পশ্চিমে আরব সাগর।

গোয়ার রাজধানীর নাম পণজী। ভাস্কো দা গামা এর বৃহত্তম শহর। ঐতিহাসিক মারগাউ শহরে আজও পর্তুগিজ সংস্কৃতির প্রভাব দেখতে পাওয়া যায়। ১৬শ শতকের শুরুতে পর্তুগিজ নাবিকেরা প্রথমে গোয়াতে অবতরণ করে এবং দ্রুত এলাকাটির নিয়ন্ত্রণ নেয়। পর্তুগিজদের এই বহিঃসামুদ্রিক অঞ্চলটি প্রায় ৪৫০ বছর টিকে ছিল। ১৯৬১ সালে ভারত সরকার এটিকে ভারতের অংশ করে নেয়।

গোয়ার সমুদ্রসৈকত, উপাসনালয় এবং বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থাপত্যগুলি বিখ্যাত। প্রতি বছর এখানে লক্ষ লক্ষ আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ পর্যটক বেড়াতে আসে। পশ্চিম ঘাটের উপর অবস্থিত বলে গোয়াতে প্রাণী ও উদ্ভিদের এক সমৃদ্ধ সমাহার ঘটেছে এবং এটিকে জীববৈচত্র্যের একটি “হটস্পট” হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

প্রাচীন গোয়া মূলত গ্রাম প্রধান ছিল, কিন্তু পর্যটকদের ব্যাপক আনাগোনার জন্য এখানে অসংখ্য হোটেল নির্মিত হয়েছে। তবে দক্ষিণাংশে এখনো অতটা কোলাহল বাড়েনি। ভারতের অন্যতম শান্তিপূর্ন এবং নিরাপদ এলাকা গোয়া। এখানে ভ্রমণের যথার্থ সময় নভেম্বর থেকে এপ্রিল যদিও আমরা ছিলাম অক্টোবরের শেষ দুদিন। প্রায় ডজন খানেক মনোরম সৈকত ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে এখানে। প্রতি বছর প্রায় ত্রিশ লাখ দেশি-বিদেশি পর্যটক আসেন এসব সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে।