মর্নিংসান২৪ডটকম Date:১৯-১২-২০১৬ Time:৪:২৮ অপরাহ্ণ


  জানুয়ারিতে চট্টগ্রামে ডোর টু ডোর বর্জ্য সংগ্রহ শুরু

জানুয়ারিতে চট্টগ্রামে ডোর টু ডোর বর্জ্য সংগ্রহ শুরু

সুমন  চৌধুরী, চট্টগ্রাম :

বন্দরনগরী চট্টগ্রামকে গ্রিনসিটি-ক্লিনসিটিতে রুপান্তরিত করার লক্ষ্যে যেখানে সেখানে আবর্জনা না ফেলে ডোর টু ডোর বর্জ্য সংগ্রহের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছিল চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। যা মেয়র নির্বাচনে আ জ ম নাছির উদ্দিন এর নির্বাচনী ইশতিহারে প্রাধান্যতা পেয়েছিল।

পূর্বের ঘোষনা অনুযায়ি নতুন বছরের শুরু থেকে ঘরে ঘরে গিয়ে (ডোর টু ডোর) বর্জ্য সংগ্রহের কথা থাকলেও পরিকল্পনামাফিক পুরো প্রস্তুতি এখনো শেষ করতে পারেনি চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন । ফলে প্রাথমিকভাবে ১৬টি ওয়ার্ডে কাজ শুরু করার কথা ভাবছে করপোরেশন ।

জানা গেছে , বন্দর নগরীর ৬০লাখ বাসিন্দার জন্য প্রতিটি পরিবারে ময়লা রাখার পরিবেশবান্ধব ঝুড়ি বিতরণের কাজ পুরোপরি শেষ হয়নি। তবে ৭টি ওয়ার্ডে পুরোপুরি এবং ৯টি ওয়ার্ডে দুই-তৃতীয়াংশ বিতরণ করা হয়েছে। এ ছাড়া কর্মপরিকল্পনার মধ্যে বর্জ্য সংগ্রহে জনবল নিয়োগ পুরোপুরি শেষ হয়নি। পুরোপুরি বিন বিতরণ করা ওয়ার্ডগুলোর মধ্যে রয়েছে গোসাইলডাঙ্গা, পশ্চিম ষোলশহর, শুলকবহর, এনায়েত বাজার, বাগমনিরাম, উত্তর পাঠানটুলী এবং আলকরণ ওয়ার্ড । এসব ওয়ার্ডের প্রতিটি ঘর-বাড়ি, দোকান ও ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে একটি বিন (ঝুড়ি) সরবরাহ করা হয়েছে। ৪০০ পরিবারের জন্য কাজ করবে একটি ভ্যান। প্রতিটি ভ্যানে সেবক থাকবে দুজন করে।

এদিকে নগরজুড়ে একই সঙ্গে ‘ডোর টু ডোর’ ময়লা সংগ্রহের কাজ যত কঠিন হোক না কেন; ডোর টু ডোর বর্জ্য সংগ্রহ পুরোপুরিভাবে চালু করা হবেই’ বলেছেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন । পাশাপাশি যে ওয়ার্ডগুলোতে বিন বিতরণ শেষ হয়ে গেছে সে ওয়ার্ডগুলো থেকে বর্জ্য সংগ্রহ চলাকালিন সময়ে বাকি ওয়ার্ডগুলোতেও বিন বিতরণ সম্পন্ন হয়ে যাবে এমনটা আশা করছেন নাছির ।

চসিক সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিন বিকেল তিনটা থেকে রাত এগারোটা পর্যন্ত এসব ওয়ার্ডে প্রতিটি বাড়িতে গিয়ে বর্জ্য সংগ্রহ করবে সেবকরা । সেই আবর্জনা ভ্যানে করে নির্ধারিত ডাস্টবিনে নিয়ে যাওয়া হবে । ডাস্টবিন থেকে গাড়িতে করে এসব আবর্জনা শহরের বাইরে নিয়ে ডামপিং করা হবে। তবে বর্জ্য সংগ্রহের কাজে কোন মহিলা সেবক থাকছে না ।