২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

ঐতিহাসিক টেস্ট স্মরণীয় করে রাখতে পারল না বাংলাদেশ

Monday, 13/02/2017 @ 4:59 pm

ঐতিহাসিক টেস্ট স্মরণীয় করে রাখতে পারল না বাংলাদেশ

ঐতিহাসিক টেস্ট স্মরণীয় করে রাখতে পারল না বাংলাদেশ

ক্রীড়া ডেস্ক: ঐতিহাসিক বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার একমাত্র টেস্টে ভারতের বিপক্ষে পারল না বাংলাদেশ। বুক চিতিয়ে লড়াই করেও ২০৮ রানের বড় ব্যবধানে হারতে হল বাংলাদেশকে।

শেষ দিনের সকালের শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি বাংলাদেশের। দিনের তৃতীয় ওভারেই সাফল্য পেল ভারত। কোনো কিছু বুঝে উঠার আগেই ফিরলেন সাকিব আল হাসান। রবীন্দ্র জাদেজার বলটি প্রত্যাশার থেকে একটু বেশি টার্ন ও বাউন্স করেছিল। শেষ পর্যন্ত বলের উপর চোখ রাখলে জাদেজার বল ঠিকমত খেলতে পারতেন সাকিব। কিন্তু পারলেন না। প্রথম ইনিংসের মত দ্বিতীয় ইনিংসেও নিজের উইকেট বিলিয়ে আসলেন সাকিব। ২১ রানে অপরাজিত থাকা সাকিব পঞ্চম দিন ১ রান যোগ করে সাজঘরে ফিরেন।

সাকিবের বিদায়ের পর শুরুর ধাক্কাটা কাটিয়ে ওঠার জন্য খানিকটা সময় লড়ছেন মুশফিক-রিয়াদ। দলীয় ১৬২ রানের মাথায় অশ্বিনের বলে ছক্কা মারতে গিয়ে ক্যাচ আউটের কবলে পড়েন মুশফিক। টার্নের বিপরীতে শট খেলতে গিয়ে নিজের উইকেট হারিয়েছেন মুশফিক (২৩)। এক কথায় নিজের উইকেট আত্মাহুতি দিয়েছেন উইকেটরক্ষক এ ব্যাটসম্যান।

ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে সাব্বির আর রিয়াদের ব্যাটে প্রতিরোধ গড়ে বাংলাদেশ। তাতেও খুব একটা লাভ হয়নি। ১৮ ওভার টিকে ছিলেন সাব্বির রহমান ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ৫১ রান যোগ করেন তারা। ভারতের বোলিং আক্রমণের বিপক্ষে জমাট ব্যাটিং করছিলেন দুজন। মধ্যাহ্ন বিরতির আগে শক্ত অবস্থানে ছিল বাংলাদেশ। বিরতির পর স্বাগতিকদের আনন্দে ভাসালেন ইশান্ত শর্মা। ইনসুইং ডেলিভারিতে এলবিডাব্লিউ ৬১ বলে ২২ রান করা সাব্বির। বল একটু নিচুঁ হয়ে সাব্বিরের প্যাডে আঘাত করে। আম্পায়ার আঙুল তোলার পর রিভিউয়ের আবেদন করেন সাব্বির। কিন্তু তাতেও বাঁচতে পারেননি।

সাব্বিরের বিদায়ের পরও হাল ছাড়েননি মাহমুদউল্লাহ। একপ্রান্ত আগলে রেখে লক্ষ্যের পথে রওনা করেন। খেলেন ব্যক্তিগত ১৩তম অর্ধশতকের ইনিংস। তবে ফিফটি করার পর খুব বেশিদূর যেতে পারেননি তিনি। ৬৪ রানে রিয়াদতে থামিয়ে দেন শর্মা। সাত ব্যাটসম্যান আউট হওয়ার পর দলের অবস্থা আরও নাজুক হয়ে পড়ে।

ঠিক অন্তিম মুহূর্তে দলের শেষ ভরসা হয়ে দাঁড়ান প্রথম ইনিংসে ৫১ রান করা মেহেদী হাসান মিরাজ। রাব্বিকে সঙ্গে নিয়ে বলের গুণাগুণ বিবেচনা করে ধীরেসুস্থে খেলে যান মিরাজ। শেষ পর্যন্ত ২৩ রান করে তাঁকেও ফিরতে হয়েছে।

মিরাজ প্যাভিলিয়নে ফেরার পরই টাইগার ভক্তদের সব আশা ভেঙে খানখান হয়ে গেল। তাইজুলের ৬ আর তাসকিনের ১ রানে আউট হওয়ার মাঝে নিজের উইকেট জিইয়ে রাখেন কামরুল ইসলাম রাব্বি। মজার ব্যাপার হলো রাব্বি রান করুক আর নাই করুক তার রক্ষণটা ছিল উল্লেখ্য করার মতো। ৭০ বলে ৩ রান। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেব তাসকিন আউট হওয়ায় শেষ বাংলাদেশের দ্বিতীয় ইনিংস। ২৫০ রানে শেষ বাংলাদেশের প্রতিরোধ।

তবে ফলাফল যাই হোক, বাংলাদেশ রেখে গেছে কিছু প্রাপ্তির নমুনা। ১৬ বছরের বেশি সময় ধরে যে টেস্টের জন্য প্রতীক্ষায় ছিল টিম টাইগার্স। হোক সেটি এক ম্যাচ। হায়দরাবাদ টেস্ট দিয়ে পূর্ণ হল সেই শূন্যটা।

ম্যান অব দ্যা ম্যাচ বিরাট কোহলি: প্রথম ইনিংসে ২০৪ ও দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৮ রান করেছেন বিরাট কোহলি। তার দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে রানের পাহাড় গড়েছে ভারত। ম্যাচসেরার পুরস্কারও উঠেছে ভারত কাপ্তানের হাতে।

স্কোর:
ভারত প্রথম ইনিংস: ৬৮৭/৬ (ডিক্লেয়ার)
ভারত দ্বিতীয় ইনিংস: ১৫৯/৪ (ডিক্লেয়ার)

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ৩৮৮/১০
বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস: ২৫০/১০।

ফলাফল: ভারত ২০৮ রানে জয়ী।