মর্নিংসান২৪ডটকম Date:16-02-2017 Time:3:15 pm


দোহাজারী-গুনদুম প্রকল্পের টেন্ডার আহবান,এডিবির অর্থায়ন নিশ্চিত

দোহাজারী-গুনদুম প্রকল্পের টেন্ডার আহবান,এডিবির অর্থায়ন নিশ্চিত

সুমন চৌধুরী:

দোহাজারী-গুনদুম ডুয়েল গেজ সিঙ্গেল লাইন প্রকল্পে দোহাজারী থেকে কক্সবাজার রামু পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণ করতে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ দুটি ধাপে টেন্ডার আহ্বান করেছে ।এরই মধ্যে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (এডিবি) অর্থায়নও নিশ্চিত হয়েছে। চলতি মাসে ঋণ চুক্তি হতে পারে আশা করা হচ্ছে। ২০২২ সালের মধ্যে রেলপথটি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ প্রকল্পের নকশাও চূড়ান্ত করেছে।এর আগে ২০১৩ সালের মধ্যে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে প্রকল্পটি ২০১০ সালের ৬ জুলাই অনুষ্ঠিত একনেক সভায় অনুমোদন দেওয়া হয়। কিন্তু অর্থায়ন জটিলতায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। ২০১৪ সালের ৯ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত একনেক সভায় সিঙ্গেল লাইন ট্র্যাককে মিটার গেজের পরিবর্তে ডুয়েল গেজ ট্র্যাকে নির্মাণের নির্দেশনা দেওয়া হয়।

টেন্ডারের প্রথম ধাপে পাঁচটি এবং দ্বিতীয় ধাপে চারটি টেন্ডার জমা পড়েছে। প্রথম ধাপে কোরিয়া-চায়না জেভি, বাংলাদেশ-চায়না জেভি, ভারত, স্পেন ও চায়না এবং দ্বিতীয় ধাপে কোরিয়া-চায়না জেভি, বাংলাদেশ-চায়না জেভি, স্পেন ও চায়না টেন্ডার জমা দিয়েছে বলে জানা গেছে।প্রকল্পের প্রথম ধাপে দোহাজারী থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত ১০০ দশমিক ৮৩১ কিলোমিটার মেইন লাইনের পাশাপাশি ৩৯ দশমিক ২০৫ কিলোমিটার লুপ লাইন নির্মাণ হবে। এতে ৩৯টি মেজর ব্রিজ, ১৪৫টি মাইনর ব্রিজ বা কালভার্ট, বিভিন্ন শ্রেণির ৯৬টি লেভেল ক্রসিং ও একটি আন্ডারপাস নির্মাণ করা হবে। প্রকল্প এলাকায় বন্য হাতির চলাচল থাকায় বন্য প্রাণীর চলাচলে ওভারপাস নির্মাণ করা হবে।

প্রথম পর্যায়ের ট্র্যাক নির্মাণে এডিবি প্রায় ১২ হাজার কোটি টাকা অর্থায়ন নিশ্চিত করলেও দ্বিতীয় পর্যায়ের প্রয়োজনীয় প্রায় ১ হাজার ১১৫ কোটি টাকার অর্থায়ন এখনো নিশ্চিত হয়নি। এছাড়া প্রকল্পের ভূমি অধিগ্রহণ বাবদ ৪ হাজার ৯১৯ কোটি টাকা ব্যয় করবে সরকার।

প্রকল্পের দ্বিতীয় ধাপে ২৮ দশমিক ৭৫২ কিলোমিটার মেইন লাইনের পাশাপাশি ৩ দশমিক ৯১৬ কিলোমিটার লুপ ও সাইডিং ডুয়েল গেজ লাইন নির্মাণে ১৩টি মেজর ব্রিজ, ৪৫টি মাইনর কালভার্ট, বিভিন্ন শ্রেণির ২২টি লেভেল ক্রসিং ও একটি আন্ডারপাস নির্মাণ করা হবে। উখিয়া ও গুনদুমে নতুন স্টেশন এবং অন্যান্য অবকাঠামো নির্মাণ করা হবে। প্রকল্পের জন্য ৩৫০ একর ভূমি অধিগ্রহণের কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

কক্সবাজার-গুনদুম রেললাইন প্রকল্প সরকারের ফাস্ট ট্র্যাক প্রকল্পের অন্যতম জানিয়ে প্রকল্প পরিচালক জানান,কক্সবাজার পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণে দরপত্রের টেকনিক্যাল মূল্যায়ন চলছে। মূল্যায়ন শেষে আবারও এডিবিতে পাঠানো হবে। সেখান থেকে অনুমতি পেলে মূল্যের প্রস্তাব খুলে ফের এডিবিতে পাঠানো হবে। তারপর মন্ত্রণালয় হয়ে চূড়ান্ত করতে কেবিনেটে যাবে।

এদিকে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসন দোহাজারী, সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, হারবাং, চকরিয়া, ডুলাহাজরা, ইসলামাবাদ, রামু, কক্সবাজারসহ নয়টি নতুন স্টেশন নির্মাণ এবং প্রথম পর্যায়ের কাজের জন্য সর্বমোট ১ হাজার ৩৯১ একর ভূমি অধিগ্রহণ কাজ শেষ করেছে।এছাড়া ভূমি অধিগ্রহণের জন্য কক্সবাজার জেলায় ৩ নম্বর নোটিশ জারি করা হয়েছে।চট্টগ্রামের চন্দনাইশেসহ বাকি উপজেলাগুলোতে শিগগির জারি করা হবে।

 




বৈশাখী আমেজে শোকের ছায়া,সিদ্দিক আহমেদের জানাজা অনুষ্ঠিত
দোহাজারী-গুনদুম প্রকল্পের টেন্ডার আহবান,এডিবির অর্থায়ন নিশ্চিত
গাউসুল আযম সৈয়দ আহমদ উল্লাহ্ (কঃ)মাইজভান্ডারীর ১১১তম উরস শরিফ ১০ই মাঘ ২৪ জানুয়ারি
সঙ্গীতের দিকপাল গফুর হালীর জীবনাবসান
জাতীয় পর্যায়ে প্রথম হলেন সীতাকুন্ডের সিফাত: প্রধানমন্ত্রীর কাছ পদক গ্রহন
কে হবেন বুয়েটের উপাচার্য ?
‘স্নাইপার’ রাইফেল জেএমবির আস্তানায় এলো কিভাবে?
শীতের হাওয়া বাড়ার সাথে সাথে নির্বাচনী হাওয়াও জমে উঠেছে
বাংলাদেশ অনুকরণীয় দেশ