চট্টগ্রাম থেকে নিরাপদ সড়ক আন্দোলন ১৭ বছরে ৭০ হাজার নিহত

index
নজরুল ইসলাম, চট্টগ্রাম অফিস: চিত্র নায়ক ইলিয়াছ কাঞ্চনের স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চন ৯৩ সালে চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার মুজাফফরাবাদ এলাকায় সড়ক দূর্ঘটনায় মর্মান্তিকভাবে নিহত হন। ১৯৯৩ সালের পর থেকে ইলিায়াছ কাঞ্চন তার প্রিয়তমা স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চনকে অকালে হারানোর পর বাংলাদেশের কোন ব্যক্তি যাতে তার প্রিয় মানুষকে অকালে হারাতে না হয়। এ জন্য পটিয়ায় শপথ নিয়েছেন সড়ক যাতে সকলের নিরাপদ হয়। নিরাপদ সড়কের দাবীতে দীর্ঘ ১৭ বছর ধরে আন্দোলন সারা দেশের জেলা উপজেলায় এখন ছড়িয়ে পড়ছে। এ সড়ক দূর্ঘটনা আমাদের জাতীয় জীবনে সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্নকে তিলে তিলে ধ্বংস করে দিচ্ছে। বাংলাদেশের মত এমন অনাকাঙ্খিত সড়ক দূর্ঘটনা পৃথিবীর খুব কম দেশেই হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী বাংলাদেশ ও দক্ষিন -পূর্ব এশিয়ায় প্রতি ঘন্টায় ৪০জন লোক সড়ক দূর্ঘটনায় নিহিত হয়। বাংলাদেশে এ মৃতের হার ১৪ শতাংশ। এ সড়ক দূর্ঘটনা আমাদের জাতীয় জীবনে চরম দুঃখ কষ্টের সমাবেশ ঘটিয়েছে। একটি সড়ক দূর্ঘটনা শুধু একটি প্রাণের শেষ নয় একটি পরিবারের ধ্বংসের কারণও। আর একটি স্বপ্নের অকাল মৃত্যুর অন্যতম ঘাতক। অসুস্থ রাজনীতির বিষাক্ত থাবায় দেশের অন্যান্য সেক্টরের মতো পরিহন সেক্টরেও বিরাজ করছে ভয়াবহ নৈরাজ্য যা সড়ক দূর্ঘটনার বৃদ্ধির অন্যতম প্রধান কারণ।
সরকারী বেসরকারী বিভিন্ন সংস্থা ও সংগঠনের প্রতিবেদনে জানা যায় বাংলাদেশে বছরে প্রায় ১০ হাজার মানুষ দূর্ঘটনায় নিহিত হয় গড় প্রতি দৈনিক মৃতের সংখ্যা দাড়ায় ২৭ দশমিক ৩৯। সড়ক দূর্ঘটনার এ অবাধ হত্যাযজ্ঞ প্রতিরোধের জন্য যথাযথ পদপে নেওয়ার বদলে যখন সরকারের স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন,”সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেলে আন্দোলন করার কিছু নেই, অ্যাকসিডেন্ট ইজ অ্যাকসিডেন্ট। এটা অবশ্যই সড়ক দূর্ঘটনায় মারা যাওয়া আত্মাদের প্রতি এবং নিহতদের স্বজনদেরর এবং ‘নির্মম পরিহাস’। এসব কারণে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির সংখ্যা দিন দিন ভয়াবহ আকারে বেড়েই চলেছে। প্রতিদিনই এ যন্ত্রদানবের দুর্ঘটনার শিকার হয়ে দেশের বহু জ্ঞানী, গুনী, বুদ্ধিজীবি, সাংবাদিক,চলচিত্র নির্মাতা, নিষ্পাপ শিশু থেকে বৃদ্ধ, স্কুল-কলেজের শিার্থীসহ অনেকেই অকালে প্রাণ হারাচ্ছেন। দুর্বল আইন ও সরকারের উপযুক্ত মনিটরিং অভাবের সুযোগ নিয়ে চালক নামের ঘাতকেরা রীতিমত হত্যার লাইসেন্স পেয়েছে এমন অবস্থাই যেন এখন নিত্য দিনের চিত্র। অদ ও আনাড়ি চালকের বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানো, মালিকের স্বেচ্ছাচারিতা, খাম খেয়ালীপানা, জন সচেতনতার অভাব, দায়ী চালকের বিরুদ্ধে উপযুক্ত শাস্তির বিধান না থাকা, চালকের মোবাইল ফোনে কথা বলা- এসব কারণেই সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞ মহল। সড়ক দুর্ঘটনা যেমন একদিকে কেড়ে নিচ্ছে বহু জ্ঞানী-গুনী, বুদ্ধিজীবির প্রাণ তেমনি অন্যদিকে দেশ হারাচ্ছে তার সোনার সন্তান। মাননীয় মন্ত্রী ভুলে গেছেন মিরসরাই ট্রাজেডি, যেখানে অকালে প্রাণ হারায় ৫৩ জন শিশু শিার্থী, ভুলে গেছেন মানিকগঞ্জ রোডে এক ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় প্র্যাত চলচিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদ ও সাংবাদিক মিশুক মনির নিহত হওয়ার কথা। সড়ক দুর্ঘটনায় প্রণহানির সংখ্যা দিন দিন ভয়াবহ আকারে বেড়েই চলেছে। দুর্বল আইন, উপযুক্ত মনিটরিং ও সরকারের দ্বায়িত্বশীল সংস্থাগুলোর কর্তব্যে অবহেলার সুযোগে চালকেরা রীতিমত বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। শুধুমাত্র সরকারি হিসাব অনুযায়ী গত ১৭ বছরে সাড়ে ৭০ হাজার সড়ক দুর্ঘটনায় অর্ধলাধিক মানুষ নিহত হয়েছে। আহতের সংখ্যা আরো বেশি।
সড়ক দূর্ঘটনার বিশেষজ্ঞ হতাহতের পরিসংখ্যান এম, মনিরুজ্জামান ও রাকিব মিত্রের এক গভেষণায় দেখা গেছে যে, ১৯৯৮ থেকে ২০০৩ পর্যন্ত সারা বাংলাদেশে ২৩ হাজার ২৭৩টি দূর্ঘটনা সংগঠিত হয়েছে। যাতে ১৯৯৮ সালে ৩৫৩৩টি, ১৯৯৯ সালে ৩৯৪৮টি, ২০০০ সালে ৩৯৭০টি, ২০০১সালে ২৯২৫টি, ২০০২ সালে ৩৯৪১টি, ২০০৩সালে ৪১১৪টি।প্রতি বছরের তুলনায় পরবর্তী বছরের দূর্ঘটনার সংখ্যা কোন ভাবেই হ্রাস করা যায়নি। শুধু ২০০১ সাল ছাড়া, বরং তা ২০০৩ সালে তা বেড়েছে।১৯৯৮-২০০৩ সালে ২৩ হাজার ২৭৩টি দূর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ১৭০৮৪ জন, আহত হয়েছেন ১৯৮৪১জন।তাছাড়া শুধু ঢাকা শহরেই ১৯৯৮ থেকে ২০০৩ সালে মোট দূর্ঘটনা ৫হাজার ১৬৮টি। মৃতের সংখ্যা ২১১০জন, আহত হয়েছেন ৩৯২৩জন। বাংলাদেশ পুলিশের পরিসংখ্যান অনুযায়ী বছরে সড়ক দূর্ঘটনায় ৪০০০ প্রাণ বিনাশ হয়, আহত হন ৫০০০জন। এতে আরো দেখা গেছে যে, অধিক সংখ্যক দূর্ঘটনা রুরাল এরিয়ায় সংগঠিত হয়। জাতীয় ও আঞ্চলিক বিশ্বরোডে তুলনামূলক কম সংখ্যক দূর্ঘটনা ঘটে। এতে রাস্তায় কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশও দূর্ঘটনায় কবলিত হয়। মৃতের সংখ্যা সহনশীল পর্যায়ে থাকলেও হাসপাতালে ইমাজেন্সি সহ হসপিটালাইজড্ হয়েছেন অনেকেই।
১৯৯৪ সালে নিহত ৩০১৩ আহত ২৭৩৫ জন, ১৯৯৫ সালে নিহত ১৬৫৩ আহত ২৮৬৪ জন ১৯৯৬ সালে নিহত ২০৪১ আহত ৪০৭৬ জন ১৯৯৭ সালে নিহত ৩১৬২ আহত ৩৯৯৭, ১৯৯৮ সালে নিহত ৩০৮৫ আহত ৩৪৫৩, ১৯৯৯ সালে নিহত ৩৩১৪ আহত ১৯১১, ২০০০ সালে নিহত ৩৪৩০ আহত ৩১৭২,২০০১ সালে নিহত ৩১০৯ আহত ৩৬০৭ ২০০২ সালে নিহত ৩৩৯৮ আহত ৩০৭০, ২০০৩ সালে নিহত ৩৩৮৯ আহত ৩৮১৮, ২০০৪ সালে নিহত ২৯৬৮ আহত ২৭৫২ ২০০৫ সালে নিহত ৩১৮৭ আহত ৩৭৫৫, ২০০৬ সালে নিহত ৩১৯৩ আহত ২৪০৯, ২০০৭ সালে নিহত ৩৭৪৯ আহত ৩২৭৩, ২০০৮সালে নিহত ৩৭৬৫ আহত ৩২৮৪, ২০০৯ সালে নিহত ২৯৫৮ আহত ২৬৮৬,২০১০ সালে নিহত ৩১৯৫ আহত ২৫৫৭, ২০১১ সালে নিহত ৩৭৯৫ আহত ২৪৯৫ জন। সড়ক দূর্ঘটনার অন্যতম কারণের মধ্যে একটি লাইসেন্সবিহীন ভূয়া ড্রাইভার যা আমাদের দেশে অবাধ প্রচলন রয়েছে। বিআরটিএ সূত্রে প্রকাশ, বাংলাদেশে নিবন্ধনকৃত গাড়ীর সংখ্যা ১৫ লাখ এবং লাইসেন্সধারী চালকের সংখ্যা মাত্র ৯ লাখ ৬০ হাজার। দেশে প্রায় ১০ লাখ লাইসেন্সহীন চালক বা ভূয়া লাইসেন্সধারী রাস্তায় প্রতিনিয়তই গাড়ী চালাচ্ছে বলে পরিবহনখাত পর্যবেকদের ধারনা। এরচেয়ে নৈরাজ্য ও ভীতিকর অবস্থা