মর্নিংসান২৪ডটকম Date:08-06-2017 Time:11:38 am


কাতারে বাংলাদেশীদের মধ্যে উদ্বেগআন্তর্জাতিক ডেস্ক : সৌদি আরব বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শ্রমবাজার হলেও কাতারে বিভিন্ন পেশায় কাজ করছেন কয়েক লাখ বাংলাদেশী। সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ (ইউএই) প্রতিবেশী দেশগুলো কাতারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার পর দেশটি এখন নানামুখী কূটনৈতিক, অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক চাপের মুখে পড়েছে। বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, কাতারে বাংলাদেশীদের মধ্যে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে যে, কাতার হয়তো তাদের ফেরত পাঠাতে পারে। এ পরিস্থিতিতে দেশটিতে থাকা বাংলাদেশীদের ব্যক্তিগত কোনো সিদ্ধান্ত না নিয়ে দোহায় বাংলাদেশ দূতাবাসের পরামর্শ গ্রহণের জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে। বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষ থেকে দেয়া ওই বিবৃতিতে আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

কাতারের রাজধানী দোহায় থাকেন বাংলাদেশী কর্মী কাজী মোহাম্মদ শামীম। তিনি জানান, বাংলাদেশী শ্রমিকদের মধ্যে এক ধরনের ভীতি তৈরি হয়েছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশীরা কাতারে থাকতে পারবেন, নাকি তাদের চলে যেতে হবেÑ এমন শঙ্কা কাজ করছে তাদের মধ্যে। সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকার বলেছে, কাতার যেন তাদের লোকজনকে ফিরিয়ে নেয়। এ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশীদের মধ্যে চলছে নানা কানাঘুষা। হয়তো বাংলাদেশীদের পাঠিয়ে দেবে কাতার। শ্রমিকদের ভয়Ñ এত অর্থ খরচ করে তারা এসেছেন, এখন ফেরত পাঠালে পরিবার নিয়ে দেশে বিপদে পড়তে হবে তাদের। বিবিসির খবরে বলা হয়, দুই নির্মাণ শ্রমিক জানিয়েছেন, তাদের বুধবার থেকে কাজে না যেতে বলা হয়েছে।

কাজী মোহাম্মদ শামীম যে প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন, সেখানকার উদাহরণ দিয়ে বলেনÑ তাদের পণ্য আসে দুবাই থেকে। সেটা এখন বন্ধ আছে। তাই তার কফিল (নিয়োগদাতা) বলে দিয়েছেন, ‘যদি এমন চলতে থাকে এবং স্টক শেষ হয়ে যায়, তাহলে স্টোর বন্ধ করে দিতে হবে এবং তোমাকে চলে যেতে হবে। পরে যদি ভালো ফল আসে তখন দেখা যাবে।’ তবে দোহায় বাংলাদেশ দূতাবাস আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে।

দূতাবাসের পরামর্শ গ্রহণের নির্দেশনা : উপসাগরীয় দেশ কাতারে উদ্ভূত পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে এককভাবে কোনো সিদ্ধান্ত না নিয়ে দোহায় বাংলাদেশ দূতাবাসের পরামর্শ গ্রহণ করার জন্য কাতারে প্রবাসী বাংলাদেশীদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। দূতাবাস এক বিবৃতিতে বলেছে, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ব্যক্তিগতভাবে কোনো সিদ্ধান্ত না নিয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনার জন্য কাতারের সব বাংলাদেশী যেন দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেন। দোহায় বাংলাদেশ দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগের ফোন নম্বর হচ্ছে +৯৭৪৪৪৬৭১৯২৭। বুধবার বাসস এ খবর জানায়।

বিবৃতিতে বলা হয়, দূতাবাস উদ্ভূত পরিস্থিতি সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ করছে। পরিবর্তিত পরিস্থিতি যথাযথ বিশ্লেষণ এবং পর্যবেক্ষণের পর দূতাবাস যথাযথ পরামর্শ দেবে। দূতাবাস জানায়, তারা পরিস্থিতির প্রতি ঘনিষ্ঠ নজর রাখছেন এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে অব্যাহত যোগাযোগ রাখছেন। বিবৃতিতে বলা হয়, পরিস্থিতি কাতার সরকারের সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে এবং এ ব্যাপারে অহেতুক আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই। কাতারে বর্তমানে ৩,৮০,০০০ বাংলাদেশী কর্মরত আছেন।