মর্নিংসান২৪ডটকম Date:২২-০২-২০১৮ Time:৬:১৬ অপরাহ্ণ


আপনাদের জন্য উপহার নিয়ে এসেছি, বাজশাহীবাসীকে প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: রাজশাহীবাসীর উদ্দেশ্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আপনাদের জন্য উপহার নিয়ে এসেছি। ইতোমধ্যে আমরা কিছু প্রকল্প উদ্বোধন করেছি আর নতুন কিছু প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেছি।’

এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত যেখানে সন্ত্রাস কায়েম করে, আওয়ামী লীগ সেখানে জনগণের জন্য উপহার নিয়ে আসে। তারা ক্ষমতায় মানুষের সম্পদ লুটপাট করে খায়। ট্রাস্ট করে এতিমদের নামে টাকা এনেছিল। ২৭ বছর পর বলে, টাকা তো আছে, সুদে-আসলে বেড়েছে। মামলা দিয়েছে তত্ত্বাবধায়ক সরকার। সেই মামলায় সাজা হয়েছে। লুট করা, চুরি করা এটাই তাদের চরিত্র।’

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজশাহীর আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

রাজশাহীতে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সংগঠিত বিভিন্ন নেতিবাচক কর্মকাণ্ড তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনাদের উপহার দিয়েছিল শুধু লাশ। শিবির-ক্যাডাররা হাত-পায়ের রগ কেটে হত্যা করেছিল। বাংলা ভাই আব্দুল কাইয়ুমকে হত্যা করে গাছে ঝুলিয়ে রেখেছিল। বিএনপির আমলে এ এলাকা ছিল সন্ত্রাসী-জঙ্গিবাদ আর বাংলা ভাইদের অভয়ারণ্য।

শেখ হাসিনা বলেন, এখন তাদের দলের নেতাকর্মীরা আন্দোলন করছে। টাকা চুরি করে তাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া জেলে গেছে। চোরের জন্য আবার কিসের আন্দোলন?

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আমরা জাতির পিতার নামে একটা ট্রাস্ট করেছি। ওই কেয়ারটেকার সরকার তন্ন তন্ন করে খুঁজেছে, কোনো কিছু পায় কি-না। আমি বলেছি, ভালোভাবে তদন্ত করে দেখেন। মানুষের জন্য কাজ করতে আসি। আমরা এতিমের টাকা মেরে খাইনি, জনগণকে দিয়েছি।

রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জনসভা পরিচালনা করেন মহানগর সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার।

জনসভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য এবং সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, মো. আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী প্রমুখ।

এর আগে বিকেল ৩টা ৫০মিনিটে জনসভা মঞ্চের পাশে রাজশাহীর উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর নাম ফলকের ভিত্তিপ্রস্তরের উন্মোচন ও উদ্ধোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর ৩টা ৫৫ মিনিটে জনসভা মঞ্চে আসন গ্রহণ করেন তিনি এবং মঞ্চে ওঠে জনতাকে হাত উচিয়ে অভিবাদন জানান।