মর্নিংসান২৪ডটকম Date:২৩-০৭-২০১৮ Time:৬:০৯ অপরাহ্ণ


হলি আর্টিজানে মামলায় চার্জশিট আদালতে

নিউজ ডেস্ক: রাজধানীর গুলশানে হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলা মামলায় চার্জশিট আদালতে জমা দেওয়া হয়েছে।

সোমবার বিকেলে পৌনে ৪টার দিকে গুলশান থানার আদালতের জিআর শাখায় এই চার্জশিটটি দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের ওসি হুমায়ুন কবীর। এতে ২১ জনকে চিহ্নিত করে ৮ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছে পুলিশ।

এর আগে মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম সোমবার রাজধানীর মিন্টো রোডে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, ‘সব আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে এই চার্জশিট পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে আদালতে। চার্জশিটে আটজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হলেও হলি আর্টিজানে হামলায় জড়িত ২১ জনকে চিহ্নিত করা হয়। যার মধ্যে ৮ জন বিভিন্ন অভিযানে ও ৫ জন হলি আর্টিসানেই নিহত হয়েছেন। এছাড়া জীবিত ৮ জনের মধ্যে ৬ জন কারাগারে ও বাকি দুইজন পলাতক রয়েছেন।’

তিনি জানান, চার্জশিটভুক্ত আসামিরা হলো নব্য জেএমবির শীর্ষ নেতা জাহাঙ্গীর হোসেন ওরফে জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজীব গান্ধী, রাকিবুল হাসান রিগ্যান, রাশেদুল ইসলাম ওরফে র‌্যাশ, সোহেল মাহফুজ, মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজান, হাদিসুর রহমান সাগর, শহিদুল ইসলাম খালেদ ও মামুনুর রশিদ রিপন। এদের মধ্যে খালেদ ও রিপন পলাতক। বাকিরা বিভিন্ন সময়ে গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছেন। পলাতক দুই আসামি শহীদুল ইসলাম খালেদ ও মামুনুর রশিদ রিপনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা চাওয়া হয়েছে অভিযোগপত্রে।

গুলশানে হলি আর্টিসানে সেনাবাহিনীর হামলায় নিহত পাঁচজন হলেন- রোহান ইবনে ইমতিয়াজ, মীর সামেহ মোবাশ্বের, নিবরাস ইসলাম, শফিকুল ইসলাম ওরফে উজ্জ্বল ও খায়রুল ইসলাম ওরফে পায়েল।

২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে হলি আর্টিজান বেকারি নামের রেস্টুরেন্টে হামলা চালিয়ে ১৭ বিদেশিসহ ২০ জনকে হত্যা করে জঙ্গিরা। তাদের ঠেকাতে গিয়ে দুই পুলিশ কর্মকর্তাও নিহত হন। রাতভর উৎকণ্ঠার পর ২ জুলাই সকালে সেনাবাহিনীর কমান্ডো অভিযানের মধ্য দিয়ে সংকটের অবসান ঘটে।