মর্নিংসান২৪ডটকম Date:২৩-১০-২০১৮ Time:৫:৪০ অপরাহ্ণ


বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সেতুর উদ্বোধন করলো চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘতম সমুদ্র সেতু ‘হংকং-ঝুহাই-ম্যাকাও সেতু’ উদ্বোধন করেছে চীন। নির্মাণকাজ শুরু হওয়ার দীর্ঘ ৯ বছর পর সেতুটি চালু হলো।

মঙ্গলবার সকালে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বহুল প্রত্যাশিত, দীর্ঘকালে তৈরি ব্যয়বহুল এ সেতুর উদ্বোধন করেন। বুধবার থেকে যাতায়াতের জন্য ২৪ ঘণ্টাই খোলা থাকছে সেতুটি।

এর মধ্য দিয়ে পার্ল রিভার ডেলটাকে যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালির প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে দাঁড় করাতে চীন তার পরিকল্পনায় আরো এক ধাপ এগিয়ে গেল।

সেতুটির একটি অন্যতম লক্ষ্যণীয় দিক হলো- এটির কিছু অংশ টানেল আকারে সমুদ্রের নিচ দিয়েও গেছে।

চীনের মুল ভূখণ্ড ঝুহাই শহরের সাথে ৫৫ কিলোমিটার বা ৩৪ মাইল দীর্ঘ এ সেতু সংযুক্ত করবে হংকং ও ম্যাকাওকে। কর্তৃপক্ষ বলছে, এর ফলে আগে যেখানে এ পথ পাড়ি দিতে তিন ঘণ্টার মতো সময় ব্যয় হতো, এখন লাগবে মাত্র আধা ঘণ্টা।

তবে সমালোচকদের মতে, আধা-স্বায়ত্তশাসিত হংকং ও ম্যাকাওকে চীনের মূল ভূখণ্ডের ঝুহাইয়ের সাথে সংযোগকারী ৫৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই সেতু বাণিজ্যের চেয়ে বেশি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যেই তৈরি করা হয়েছে।

হংকংভিত্তিক বর্ষীয়ান রাজনৈতিক বিশ্লেষক ফিলিপ বাউরিং বলেন, ‘এটি হংকং ও ম্যাকাওয়ের সাথে মূল ভূখণ্ডের ঝুহাইকে একত্রিত করার প্রয়াসে একটি বড় রাজনৈতিক পদক্ষেপ। ওই অঞ্চলের জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থ পর্যাপ্ত ছিল। এটি নিশ্চিতভাবেই বাণিজ্যিক পদক্ষেপ নয়।’

চীন হংকং ও ম্যাকাওয়ের সাথে মূল ভূখণ্ডের বাণিজ্য ত্বরান্বিত করতে নানা পদক্ষেপ নিচ্ছে। নতুন এই মেগা সেতু উদ্বোধনের এক মাস আগেই মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে হংকংকে যুক্ত করে দ্রুত গতির রেল সংযোগ দিয়ে যাত্রী পরিবহন উদ্বোধন করা হয়েছে।

ভূমিকম্প ও টাইফুল সহনীয় হংকং-ঝুহাই-ম্যাকাও সেতুর অর্থায়ন করেছে চীনা সরকার, হংকং ও ম্যাকাও। এসব কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এই সেতু পণ্য ও যাত্রীবাহী পরিবহন ত্বরান্বিত করবে, বৃহত্তর ‍উপসাগরীয় অঞ্চলের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করবে।