রামগঞ্জে প্রভাবশালীদেও দখলে সরকারী খাল

Ramgonj photo 19--11--2014মোঃ ছায়েদ হোসেন, রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ২নম্বর নোয়াগাঁও ইউনিয়নের আশারকোটা গ্রামের চৌকিদার বাড়ির মৃত আঃ রশিদের ছেলে মোঃ আলমের নেতৃত্বে তার ভাই মোঃ সেলিম, মোঃ লুৎফর রহমান, মন্টু মিয়া আওয়ামীলীগের কর্মী পরিচয়ে নিজ বাড়ির সামনে পানিয়ালা-আশারকোটা সরকারী খালের উপর অবৈধ স্থাপনা নির্মান অব্যাহত রেখেছে। খালের উপর অবৈধ স্থাপনা নির্মান করায় স্থানীয় এলাবাবাসী বাঁধা প্রদান করলে মোঃ আলম তার ভাইসহ নিজেদেরকে কথিত আওয়ামীলীগ কর্মী পরিচয় দিয়ে সরকারী নিয়ম-নীতির কোন তোয়াক্কা না করে সরকারী খালের উপর ভবন নির্মান অব্যাহত রেখেছে। এতে করে ওই অবৈধ স্থাপনার দুপাশে সরকারের এলজিআরডি কতৃক নির্মানকৃত ২টি ব্রীজের নিচ দিয়ে পানি সরবরাহ বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়ে পড়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, রামগঞ্জ উপজেলার ২নং নোয়াগাঁও ইউনিয়নের আশারকোটা গ্রামের পানিয়ালা-আশারকোটা সরকারী খালের চৌধুরী বাড়ির সামনে সরকারী সকল নিয়মনীতিকে উপেক্ষা করে মোঃ আলম তার ভাইসহ জোরপূর্বক ভবন নির্মান অব্যাহত রেখেছে। নোয়াগাঁও ইউনিয়নের তহশিলদার আবদুস ছাত্তার আশার কোটা ১০৫ নং মৌজার ১০২০ হালদাগ সরকারী বলে ভবন নির্মান না করার জন্য মোঃ আলমকে নোটিশ প্রদান করলে সে ওই নোটিশকে উপেক্ষা করে ভবন নির্মান অব্যাহত রাখে। পরে তহশিলদার আঃ সাত্তার গত ৯ নভেম্বর ২০১৪ইং তারিখে ১৩৭নং স্মারকের আলোকে লিখিত ভাবে রামগঞ্জ উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা মোহাম্মদ রফিকুল হক আশারকোটার ওই অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের ব্যাপারে অবগত করলেও এখনও পর্যন্ত কোন প্রদক্ষেপ নেয়নি। সৃষ্ট ঘটনায় ২নম্বর নোয়াগাঁও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ জাবেদ হোসেন জানান, আওয়ামীলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে আলম ও তার ভাইয়েরা যা করছে এটা ঠিক নয়। সরকারী খালে স্থাপনা নির্মান আইনপরিপন্থী। আর স্থাপনা নির্মানের জন্য আওয়ামীলীগের কোন নেতা অনুমতিও দেয়নি এবং দিবেও না এটা আমার বিশ্বাস। আর আওয়ামীলীগ কোন অন্যায় কর্মকান্ডকে প্রশ্রয় দেয়না। এব্যপারে স্থাপনা নির্মানকারী মোঃ আলম ও তার ভাই মোঃ সেলিম জানান, এই স্থাপনা নির্মান করে আমরা ব্যবসা-বানিজ্য করবো আমাদেরকেতো ব্যবসা-বানিজ্য করে খেতে হবে। আর স্থাপনাটি আমি আমাদের দলের বড় লিডারদের সাথে আলোচনা করে তাদের নির্দেশ মোতাবেক কাজ করেছি। কোন সমস্যা হবেনা আশা করি। সরকারী খালের উপর স্থাপনা নির্মান বৈধ কিনা এব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তারা জানান, ভাই আমরা রামগঞ্জে এসে আপনার সাথে দেখা করবো। এব্যাপারে তহশিলদার আঃ সাত্তার জানান, উপজেলার নোয়াগাঁও ইউনিয়নের ১০৫ নম্বর আশারকোটা মৌজার ১০২০ হালদাগ মোতাবেক এটা সরকারী সম্পত্তি। অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মান না করার জন্য আলম ও তার ভাইদের আমি নোটিশ করেছি। পরে আলম আমার নোটিশকে অমান্য করায় উপজেলা ভূমি কর্মকর্তাকে স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য লিখিতভাবে জানিয়েছি। রামগঞ্জ উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা মোহাম্মদ রফিকুল হক জানান, পানিয়ালা-আশারকোটা খালের উপর নির্মানকৃত অবৈধ স্থাপনাটির ব্যাপারে আমার নলেজে আছে। এটি উচ্ছেদ করা সময়ের ব্যাপার। যে কোন মুহুত্বে উচ্ছেদ কার্যকর করা হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মাহবুবুল আলম জানান, সরকারী খালে স্থাপনা নির্মান বেআইনী। স্থাপনাটি উচ্ছেদের জন্য আমাদের নোয়াগাঁও ইউনিয়নের তহসিলদার লিখিতভাবে জানিয়েছে। এখন জেএসসি পরীক্ষা চলছে। পরীক্ষা শেষে যে কোন মুহুত্বে অভিযান চালিয়ে উচ্ছেদ করা হবে।