সততা ও দক্ষতার সঙ্গে নতুন মন্ত্রিদের কাজ করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

'জীবনযাত্রার মানোন্নয়নের মাধ্যমে জনগণের আস্থার মর্যাদা রাখতে হবে'
সততা ও দক্ষতার সঙ্গে নতুন মন্ত্রিদের কাজ করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

নিউজ ডেস্ক: নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের সততা ও দক্ষতার সঙ্গে কাজ করতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার তেজগাঁওস্থ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত নতুন মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠকে এই নির্দেশ দেন শেখ হাসিনা। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৈঠকের শুরুতে সদ্য প্রয়াত আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জনগণের প্রতি সরকারের যে দায়িত্ব, তা গুরুত্বের সঙ্গে পালন করতে হবে। সিনসিওরিটি অব পারপাস এবং অনেস্টি অব পারপাস—এ দুটি কথা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই মন্ত্রিপরিষদ সবসময় এ কথাটি মনে রেখে যে কাজটি করবেন, সেটি নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে করবেন।

তিনি বলেন, যে অগ্রযাত্রা আমরা শুরু করেছি, সেটি আমাদের এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। আমাদের আগে যে মন্ত্রিসভা ছিল, আমরা যে কাজগুলো করতে পেরেছিলাম, বিগত সরকারের আমলে আমরা যে কাজগুলো শুরু করেছিলাম, সেই কাজের ধারাবাহিকতা বজায় রেখে চলতে হবে এবং দেশকে আমাদের এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে মানুষের আকাঙ্ক্ষা অনুযায়ী।

শেখ হাসিনা বলেন, প্রতিটি কাজ নিষ্ঠার সঙ্গে করতে হবে, এ কথাটি মনে রাখতে হবে। এছাড়া কোন কাজ ফেলে রাখা যাবে না, দ্রুত করতে হবে। জনগণের প্রতি আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে। সেই কর্তব্য পালন করতেই আমরা এখানে এসেছি। সততার সঙ্গে কাজ করলে সততার শক্তি অপরিসীম। সেটি আমরা বারবার প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি।

মন্ত্রিসভার বৈঠকে একাদশ জাতীয় সংসদের উদ্বোধনী অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি যে ভাষণ দেবেন, তার খসড়া অনুমোদনসহ কয়েকটি আইনের খসড়া অনুমোদন করা হয়েছে।

বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

বৈঠকে ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ আইন)-২০১৮ এর খসড়া, জাতীয় সমাজকল্যাণ পরিষদ আইন, বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্র আইন, চিটাগং হিলট্র্যাকস (ল্যান্ড অ্যাকুইজেশন, রেগুলেশন) অ্যামেন্ডমেন্ট অ্যাক্টের খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়। এছাড়া প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার ও সুরক্ষা আইন-২০১৩ এবং প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার ও সুরক্ষা বিধিমালার আলোকে প্রতিবন্ধীবিষয়ক জাতীয় কর্ম পরিকল্পনার খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়।