চলন্ত সিএনজি থেকে ছুঁড়ে ফেলা ৮ মাসের শিশুকে উদ্ধার করেছে এএসআই হিরণ মিয়া

একটি চলন্ত সিএনজি থেকে ছুঁড়ে ফেলা হয়েছে ৮ মাসের এক শিশুকে। মেরে ফেলার জন্যই শিশুটিকে ছুঁড়ে ফেলা হয়েছে বলে ধারণা পুলিশের।

সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) চট্টগ্রামের খুলশী এলাকায় দুপুরের এ ঘটনার পর পুলিশ শিশুটিকে উদ্ধার করে মেডিকেলে ভর্তি করেছে।

বিষয়টি নিয়ে পুলিশ জানায়, দুপুর ১টার দিকে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশে খুলশী থানার পলিট্যাকনিক্যাল এলাকায় মডেল স্কুলে এসএসসি পরীক্ষাকেন্দ্রের বাইরে আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব পালন করছিলেন এএসআই হিরণ মিয়া।

আর হিরণ হঠাৎ দেখতে পান দ্রুতগামী একটি সিএনজিচালিত ট্যাক্সির ভেতর থেকে ছোট বস্তু সদৃশ কিছু একটা ফেলে দিয়ে সিএনজি ট্যাক্সিটি চলে যাচ্ছে। সাথে সাথে হিরণ ঘটনাস্থলে এগিয়ে যায় এবং সেখান থেকে অনুমান ৭-৮ মাসের একটি বাচ্চা মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করেন। বাচ্চাটিকে সুচিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নিয়ে যায় এবং উত্তর বিভাগের পক্ষ থেকে বাচ্চাটির চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হলে ধীরে ধীরে সে সুস্থ হয়ে ওঠে। বর্তমানে সে হাসপাতালে ৮নং ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন।

এ বিষয়ে খুলশী থানার অফিসার ইনচার্জ প্রণব চৌধুরী জানান, অটোরিকশার ভেতরে কারা ছিল, সেটা এএসআই হিরণ সঠিকভাবে দেখতে পাননি। শিশুটি মারা যাবে ভেবে কবরস্থানের পাশে ফেলে যাওয়া হয়েছে, যাতে মৃত্যুর পর বেওয়ারিশ হিসেবে ধরে দাফন করে ফেলতে পারে। একটি শিশুর সঙ্গে এমন নির্মম আচরণ কল্পনাও করা যায় না।

বিষয়টি নিয়ে চিকিৎসকের উদ্বৃতি দিয়ে তিনি জানান, শিশুটি পানিশূন্যতা ও অপুষ্টিতে ভুগছে। তাকে স্যালাইন দেওয়া হয়েছে। তবে বাঁচানো যাবে বলে ডাক্তাররা আশ্বাস দিয়েছেন। শিশুটি সুস্থ হওয়া পর্যন্ত পুলিশ তত্ত্বাবধানে রাখবে। এর মধ্যে পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা হবে।

এছাড়া পরিচয় না পেলে আদালতের শরণাপন্ন হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ দিকে, ঘটনাস্থলে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরায় সংরক্ষিত ফুটেজ থেকে অটোরিকশাটির গন্তব্য অনুসন্ধানের চেষ্টা চলছে বলেও জানিয়েছেন খুলশী থানার অফিসার ইনচার্জ প্রণব চৌধুরী।