পাঁচ মাস পর দেশে ফিরছেন এন্ড্রু কিশোর

দেশবরেণ্য আটবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত কণ্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোর প্রায় ৫ মাস ধরে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

অসুস্থ অবস্থায় গত ৯ সেপ্টেম্বর উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়েন তিনি। পাঁচ মাস পেরিয়ে গেছে। এখনো চিকিৎসা চলছে তার।

তার ভক্তরা অধির আগ্রহে অপেক্ষা করছেন কবে দেশে ফিরবেন এন্ড্রু কিশোর, কবে আবারও গান গাইবেন তিনি! এরই মধ্যে সিঙ্গাপুরে একটি কনসার্টে অসুস্থ অবস্থায়ই হাজির হয়েছিলেন শ্রোতানন্দিত এই শিল্পী। গান গেয়ে নিজেও কেঁদেছিলেন আর ভক্তদেরও কাঁদিয়ে ছিলেন।

অনেক অপেক্ষার পর এবার জানা গেল সুখবর। দীর্ঘ চিকিৎসার পর এখন অনেকটাই ভালো আছেন এন্ড্রু কিশোর। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মার্চ মাসেই দেশে ফিরতে পারেন তিনি।

জানা গেছে, সম্ভাব্য তারিখ ১৮ কিংবা ২০ মার্চ দেশে ফিরতে পারেন এন্ড্রু কিশোর। চিকিৎসকরা চূড়ান্ত ভাবে হাসপাতাল থেকে এন্ড্রু কিশোরের ছুটির তারিখ জানাননি এখনো। তবে তারা জানিয়েছেন, সব কিছু ঠিক থাকলে মার্চ মাসের মাঝামাঝি হাসপাতাল থেকে তার ছুটি মিলতে পারে।

এন্ড্রু কিশোরকে বাংলা চলচ্চিত্রের গানের এক মহাসমুদ্র বলা যেতে পারে। কয়েক দশক ধরে সেই সমুদ্রে সাঁতার কেটে চলেছেন শ্রোতারা। তার কণ্ঠ মধু ছড়ায়, তার শত শত গান মানুষের মুখে মুখে ফেরে।

সুখ-দুঃখ, হাসি-আনন্দ, প্রেম-বিরহ সব অনুভূতির গানই তিনি গেয়েছেন। তার সবচেয়ে জনপ্রিয় গানের মধ্যে রয়েছে- জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প, হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস, ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে, আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি, আমার বুকের মধ্যে খানে, পৃথিবীর যত সুখ আমি তোমার ছুঁয়াতে খুঁজে পেয়েছি, সবাইতো ভালোবাসা চায়, বেদের মেয়ে জোসনা আমায় কথা দিয়েছে, তুমি আমার জীবন আমি তোমার জীবন, ভালো আছি ভালো থেকো, তুমি মোর জীবনের ভাবনা, চোখ যে মনের কথা বলে, পড়েনা চোখের পলক ইত্যাদি।