সন্ধ্যায় শিশু খুন: ভোর রাতেই ‘বন্ধুকযুদ্ধে’ নিহত আসামি

নগরীতে সন্ধ্যায় তিন বছরের শিশুকে জবাই করে খুন করার অভিযোগে অভিযুক্ত জসিম উদ্দিন রাজু নামের এক আসামি দিনের আলো দেখার আগেই পুলিশের তথাকথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। একই ঘটনায় পাঁচ পুলিশ কর্মকর্তা আহত হওয়ার পাশাপাশি ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (৭ জুলাই) দিবাগত রাত সাড়ে তিনটায় ডবলমুরিং থানার ঝর্ণাপাড়ায় এই ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি, পাঁচ রাউন্ড কাতুর্জ, একটি বিদেশী ফোল্ডিং টিপ ছোরাসহ ৮৭৫ পিস ইয়বা উদ্ধার করা হয়।

আহত পুলিশ কর্মকর্তারা হলেন নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (পশ্চিম) এএএম হুমায়ুন কবির, ডবলমুরিং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সদীপ কুমার দাশ, পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ জহির হোসেন, এসআই অর্নব বড়ুয়া ও মুহাম্মদ হেলাল উদ্দিন।

জানা গেছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে জসিমের সাথে ছোট ভাইয়ের বৌ নিলু আক্তারের ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে জসিম তার ভাইয়ের ৩ বছরের ছেলে মেহেরাবকে ধারালো ছোরা দিয়ে জবাই করে হত্যা করে। এ ঘটনার পর পর নিলু আক্তার ডবলমুড়িং থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ বিষয়ে ডবলমুরিং থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জহির হোসেন চট্টগ্রাম নিউজকে বলেন, শিশু হত্যা মামলাসহ একাধিক মামলার তালিকাভুক্ত আসামী মো. জসিম উদ্দিন রাজুকে গ্রেফতারের জন্য মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ডবলমুরিং থানার বিভিন্ন এলাকায় আমরা অভিযান পরিচালনা করি। অভিযানের একপর্যায়ে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ডবলমুরিং থানাধীন পশ্চিম ঝর্ণাপাড়াস্থ জোড় ডেবার পূর্ব পাড়ে রাত সাড়ে ৩ টার দিকে তাকে ধরতে গেলে আসামী জসিম ও তার সহযোগীরা পালানোর উদ্দেশ্যে পুলিশকে লক্ষ্য করে এলোপাথাড়ি গুলি ছুড়ে।

পরে পুলিশ পাল্টা গুলি চালালে জসিম আহত হয় এবং সহযোগীরা পালিয়ে যায়। আহত জসিমকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। তার বিরুদ্ধে অস্ত্র, মাদক, দ্রুত বিচার আইনসহ একাধিক মামলা রয়েছে।