গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় মৃত্যু ৩৭ ও আক্রান্ত ২৯৪৯

দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও মারা গেছেন ৩৭ জন। এ নিয়ে মোট মারা গেছেন ২ হাজার ২৭৫ জন। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৯৪৯ জন। এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৭৮ হাজার ৪৪৩ জন।

আজ শুক্রবার (১০ জুন) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

তিনি বলেন, নতুন যুক্ত একটিসহ মোট ৭৭টি ল্যাবরেটরিতে আজ নমুনা পরীক্ষার তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৪ হাজার ৩৭৭টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। পরীক্ষা করা হয় ১৩ হাজার ৪৮৮টি নমুনা। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো নয় লাখ ১৮ হাজার ২৭২টি। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও এক হাজার ৮৬২ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৮৬ হাজার ৪০৬ জনে।

এদিকে জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুসারে বিশ্বব্যাপী শুক্রবার সকাল পর্যন্ত  ভাইরাসটিতে মারা গেছে ৫ লাখ ৫৪ হাজার ২৪৭ জন মানুষ। আর এ সময়ে আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ২২ লাখ ৩২ হাজার ২১১ জন।

ইউরোপে এখন করোনার সংক্রমণ কিছুটা কমে আসলেও  আমেরিকার দুই মহাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ায় সংক্রমণ দ্রুত বাড়ছে। তবে আশার কথা হচ্ছে, এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থতার হার দ্রুত বাড়ছে। মৃতের হারও কমছে।

করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৩১ লাখেরও বেশি এবং মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৩৩ হাজার মানুষের।

করোনায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আক্রান্ত ও মৃত্যু ব্রাজিলে। সেখানে ১৭ লাখ ৫৫ হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত এবং মারা গেছে ৬৯ হাজার ১৮৪ জন।

করোনায় তৃতীয় সর্বোচ্চ আক্রান্ত হয়েছে ভারতে। দেশটিতে ৭ লাখ ৬৭ হাজার জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। ভারতে মৃত্যুর সংখ্যা তুলনামূলক কম। মৃত্যুর সংখ্যায় অষ্টম দেশটি। সেখানে করোনায় মারা গেছে ২১ হাজার ১২৯ জন।

চতুর্থ সর্বোচ্চ আক্রান্ত দেশ রাশিয়া। সেখানে ৭ লাখ ৬ হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। তবে রাশিয়াতেও মৃতের সংখ্যা তুলনামূলক কম। মৃত্যুর দিক দিয়ে রাশিয়া বিশ্বে ১১ তম। সেখানে করোনায় মারা গেছে ১০ হাজার ৮২৬ জন মানুষ।

গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্তের ঘোষণা আসে। আর গত ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।