শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের নবম দিনের মতো আন্দোলন চলছে

বোরাক টাওয়ারের সামনে নবম দিনের মতো শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের অনশন ধর্শঘট চলছে, তাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এই কর্মসূচি চলবে বলে ঘোষণা দিয়েছন অনশনকারীরা। 

আজ বুধবার (১৫ জুলাই) সকাল থেকেই অনশন করছে শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা।

করোনা পরিস্থিতির কারণে আইনজীবী তালিকাভুক্তির লিখিত পরীক্ষা অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে এবং দীর্ঘ ৩ বছরেও এনরোলমেন্ট প্রসেস সম্পন্ন হয়নি। এজন্য ২০১৭ ও ২০২০ সালে এমসিকিউ পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের লিখিত ও ভাইভা পরীক্ষা না নিয়ে সরাসরি গেজেট প্রদানের মাধ্যমে আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্তিকরণের দাবিতে গত মঙ্গলবার (৭ জুলাই) বিকেল থেকে আমরণ অনশন করছেন শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা।

শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা বলেন, আমরা নয় দিন যাবৎ অনশন করলেও আমাদের অভিভাবক বার কাউন্সিল আমাদের সাথে কোনোরূপ যোগাযোগ করেননি। করোনার এই মহামারী সময়ে ঘর থেকে বের হতে সারা বিশ্বের মানুষ আজ ভয় পাচ্ছে, সেখানে আপনাদের সন্তানরা কোর্ট প্রাঙ্গনে অনশনরত অবস্থায় পরে আছে বার কাউন্সিল জেনেও না জানার ভান করে আছেন এরি মধ্যে আমাদের অনেক সহযোদ্ধা বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি।

আমরা আজ ৯ দিন ধরে করোনায় মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে অনশন করছি। আমাদের জীবন নিয়ে আর চিনিমিনি খেলবেন না, আর পারছি না, মৃত্যুকে হাতে নিয়ে পরে আছি আন্দোলনে। বার কাউন্সিলের নেতারা একবারও দেখতে আসলো না। মানুষ গুলো এতো অমানুষ কেমনে হয়? যাদের জীবন থেকে ৩ বছর ৫ বছর চলে যায় সে বুঝে জীবনের সময়ের মূল্য কি। সবাই বড় বড় লেকচার দিতে পারে। কেউ আমাদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে না।

শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের গেজেট দিয়ে  সনদের দাবিকে অনেকে নীতিগত সমর্থন জানিয়েছেন। তাদের মধ্য

এম.এ.মান্নান
মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রী
মাননীয় সংসদ সদস্য, সুনামগন্জ -৩। তিনি দু:খ প্রকাশ করে জানিয়েছেন মিডিয়াগুলো কেন আপনাদের এত গুরুত্বপূর্ণ দাবী ঠিক মতো প্রচার করছে না? তিনি অতিসত্তর মাননীয় আইনমন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন ।

সুনামগঞ্জ -১ আসনের বারবার (৩ বারের) নির্বাচিত সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। তিনি বলেন, বেকারত্ব দূরীকরণে এম.সি.কিউ উত্তীর্ণ (২০১৭/২০২০) শিক্ষানবিশ আইনজীবিদের লাইসেন্স প্রদান সহ সামগ্রিক বিষয়ে কার্যকর সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য বার কাউন্সিল নেতৃবৃন্দকে উদাত্ত আহবান জানান।

এডভোকেট সাইফুজ্জামান শেখর
মাননীয় সংসদ সদস্য মাগুরা -১, পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ মাননীয় সংসদ সদস্য, সুনামগন্জ-৪। ড.জয়া সেন গুপ্ত মাননীয় সংসদ সদস্য, সুনামগন্জ -২। উনি বিশিষ্ট পার্লামেন্টেরিয়ান প্রয়াত জাতীয় নেতা, রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের সহধর্মিনী। এডভোকেট নাহিদ সুলতানা যুথী বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট। উনি ব্যারিষ্টার ফজলে নুর তাপসের বড় ভাই যুবলীগের চেয়ারম্যান পরশের সহধর্মিনী।

তারা আশা করেন বিশ্বের এই মহামারির সময়ে চুপ না থেকে বার কাউন্সিলের উচিৎ আন্দোলনরত শিক্ষানবিশদের সাথে বসে তাদের দাবির বিষয়টা আলোচনা করে একটা সমাধান বের করা।