বিশ্ব ইজতেমায় সেবা দিতে প্রস্তুত প্রশাসন

istamaঢাকা অফিস: আগামী ৯ জানুয়ারি শুরু হচ্ছে বিশ্ব ইজতেমা। টঙ্গীর তুরাগ তীরে অনুষ্ঠিত হবে ইজতেমা। ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের সেবা দিতে প্রশাসন প্রস্তুত রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।শনিবার সকালে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের টঙ্গী অঞ্চলের কার্যালয়ে বিশ্ব ইজতেমার সার্বিক প্রস্তুতি পর্যালোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি কথা জানান।প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ একটি বৃহত্তম মুসলিম প্রধান দেশ। আগামী ৯ জানুয়ারি শুরু হচ্ছে বিশ্ব ইজতেমা। টঙ্গীর তুরাগ তীরে অনুষ্ঠিত হবে ইজতেমা। ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের সেবা দিতে প্রশাসন প্রস্তুত রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। শনিবার সকালে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের টঙ্গী অঞ্চলের কার্যালয়ে বিশ্ব ইজতেমার সার্বিক প্রস্তুতি পর্যালোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি কথা জানান। প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ একটি বৃহত্তম মুসলিম প্রধান দেশ। এইদেশে মসজিদের সংখ্যা ও মুসল্লিদের সংখ্যা দেখে বলা যায় তাবলীগ জামায়াতের মেহনত বৃথা যায়নি। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম জামায়াত বিশ্ব ইজতেমার আয়োজনে প্রশাসন, পুলিশ বিভাগ, সিটি করপোরেশনসহ গাজীপুরের এলাকাবাসী সকলেরই পূর্ব অভিজ্ঞতা রয়েছে। তাই আমরা পূর্বের অভিজ্ঞতা অনুযায়ী এবারও ইজতেমায় আসা মুসল্লিদের সেবা দিতে প্রস্তুত রয়েছি। আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, বিশ্ব ইজতেমা আমাদের জন্য একটি গুরুত্ত্বপূর্ণ আয়োজন। ইতোমধ্যে বিভাগ অনুযায়ী বন্টন করা কাজ সম্পন্ন হয়েছে। মুসল্লিদের সেবা দিতে পানি, টয়লেটসহ যাবতীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। প্রায় ৫০টি ওষুধ কোম্পানি মুসল্লিদের সেবা দিতে প্রস্তুত রয়েছে। স্বরাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, গাজীপুর একটি গুরুত্বপূর্ণ জেলা। ৩৯টি রুটের গাড়ি এ রাস্তা দিয়ে চলে। তাই যে কোনো সময় রাস্তায় যানজটের সৃষ্টি হতে পারে। বিষয়টি মাথায় রেখে গাজীপুর পুলিশ, এলজিইডি ও সড়ক বিভাগের জন্য কিছু রেকারের ব্যবস্থা করা যেতে পারে।স্থানীয় সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, বিগত বছরগুলোতেও ইজতেমা সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। আশা করছি এবারও সফল হবে। আমরা সার্বিকভাবে মুসল্লিদের সেবা দিতে প্রস্তুত রয়েছি। আগামী ৯ জানুয়ারি থেকে প্রথম দফার বিশ্ব ইজতেমা শুরু হবে। ১১ জানুয়ারি আখেরী মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হবে। আবার ১৬ জানুয়ারি দ্বিতীয় দফায় বিশ্ব ইজতেমা শুরু হবে। শেষ হবে ১৮ জানুয়ারি।