মর্নিংসান২৪ডটকম Date:০৫-০২-২০১৫ Time:৫:৩২ অপরাহ্ণ


chমোঃ ছায়েদ হোসেন, রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর), প্রতিনিধি: ৫০ শয্যা বিশিষ্ট রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার আর বহিরাগত দালাল চক্রের কার্যকলাপে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের ভোগান্তি চরমে। ডাক্তার মো. নাজমুল হকসহ কতিপয় কয়েকজন ডাক্তার প্রাইভেট ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। উপজেলার দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসা রোগী ও অভিভাবক প্রতিনিয়ত অসাধু ডাক্তার আর দালাল চক্রের ফাঁদে পড়ে ভোগারি শিকার হচ্ছেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগ থেকে শুরু করে ডাক্তারদের চেম্বারে প্রতি মুহুর্তে দেখা যায় দালালদের আনাগোনা। ডাক্তারদের চেম্বার থেকে রোগীরা বের হতে না হতে এক শ্রেণীর দালাল চক্র ডাক্তারদের দেয়া পরীক্ষা-নিরীক্ষা করানোর জন্য তাদেরকে সরকারি হাসপাতাল সংলগ্ন বিভিন্ন ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ও তার আশেপাশের বিভিন্ন ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে নিয়ে যায়। এছাড়া ডাক্তারের অনুপস্থিতিসহ নানা কারণে ব্যাহত হচ্ছে স্বাস্থ্যসেবা। বেশীর ভাগ সময়ে হাসপাতালে নতুন কয়েকজন ডাক্তার ছাড়া আর কাউকে পাওয়া যায় না। জানা গেছে, রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান ডাক্তার মুজাম্মেল হকের অদক্ষার কারনে ডাক্তার মো. নাজমুল হকসহ কয়েকজন ডাক্তার হাজিরা খাতায় নাম সই করেই প্রতিনিয়ত অপেক্ষা করতে থাকেন কখন বাহির থেকে ফোন আসবে। প্রাইভেট ক্লিনিক কিংবা ডায়াগনষ্টিক সেন্টার থেকে ফোন আসা মাত্রই সেখানে ছুটে যান তারা। এছাড়াও ডাক্তারগন হাসপাতালে রোগী দেখার পর বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ভিজিটিং কার্ড ধরিয়ে দিয়ে নিজ নিজ প্রচন্দনীয় ক্লিনিক ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে পাঠিয়ে দেন। এতে গরিব ও নিরীহ রোগীরা চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অন্যদিকে হাসপাতালের পিয়ন থেকে শুরু করে নার্স এবং কেরানি পর্যন্ত কমিশন বাণিজ্য নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। সরকারের নিয়ম অনুযায়ী জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেয়ার ঘোষণাটি রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কোনোভাবেই কার্যকর নেই।
সরেজমিনে সোমবার (২ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টার দিকে রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডাক্তার মো. নাজমুল হকের চেম্বারে গিয়ে দেখা যায় কয়েকজন রোগী ডাক্তারের অপেক্ষায় বসে আছেন। ডাক্তার চেম্বারে না থাকার কারন জানতে চাইলে রোগীরা বলেন, স্যারের মোবাইলে ফোন আসলে প্রায় এক ঘন্টা আগে তিনি আমাদের বসিয়ে রেখে হাসপাতালের বাহিরে চলে যান। পরে সূত্রে জানা যায়, ডাক্তার মো. নাজমুল হক ওই সময়ে হাসপাতাল সংলগ্ন মেডিনোভা ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে প্রাইভেট রোগী দেখছেন। সত্যতা যাচাই করতে স্থানীয় সাংবাদিকরা মেডিনোভা ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের সামনে অবস্থান নেয়। কিছুক্ষণ পর তিনি ওই ডায়াগনষ্টিক সেন্টার থেকে বের হওয়ার সময় তার ছবি তুলতে গেলে তিনি মুখ ডেকে হাসপাতালের দিকে দ্রুত চলে যান। এসময় তিনি দম্ভ করে সাংবাদিকদের বলেন, পত্রিকায় রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তারদের বিরুদ্ধে অনেক সংবাদ প্রকাশ করেছেন, কই আমাদেরতো কিছুই হয়নি। এখনো লিখলে কিছুই হবে না। বিষয়টি তাৎক্ষণিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মাহবুবুল আলম ও লক্ষ্মীপুর জেলা সিভিল সার্জেন ডা. এম.জি. ফারুক ভূঁইয়াকে জানানো হলে তাঁরা এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান।

 

পাস্তুরিত দুধ নিয়ে কারসাজি আছে কি না দেখা উচিত: প্রধানমন্ত্রী» « চান্দগাঁওয়ে ডোমখালী খালে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু» « পাকিস্তানে সামরিক বিমান বিধ্বস্তে নিহত ১৭, আহত ১২» « র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ধর্ষণকারীর নিহত» « গুজব রটনাকারীদের ধরিয়ে দিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর» « লামায় বন্যা ও পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে চাল বিতরণ» « কক্সবাজার শহর রক্ষায় ঝাউবন করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর» « দেশের সব উপজেলায় মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর» « সিঙ্গাপুরে ওবায়দুল কাদেরের স্বাস্থ্যের আশানুরূপ উন্নতি» « প্রাইভেটকারে করে এসে ছিনতাইয়ের চেষ্টা, ৩ জনকে গণপিটুনি» «