মর্নিংসান২৪ডটকম Date:০৪-০৮-২০১৪ Time:৯:৫৯ অপরাহ্ণ


পাটুরিয়া প্রতিনিধি : পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী বহনকরা হচ্ছে। লঞ্চগুলো প্রবল বাতাস আর তীব্র স্রোতের মধ্যে মারাত্মক ঝুঁকিনিয়ে চলাচল করছে। ঈদ ফেরত অতিরিক্ত যাত্রীর ভিড়ে পাটুরিয়াঘাট হয়ে পড়েছেনাকাল।

দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ পাটুরিয়া ঘাট হয়েঢাকাসহ বিভিন্ন কর্মস্থলে ফিরছে। গত তিনদিনের মত সোমবারও অতিরিক্ত যাত্রীরচাপে পাটুরিয়াঘাটে জনজট তৈরী হয়। যানবাহন স্বল্পতার কারনে ওইসব যাত্রীরাস্ব-স্ব গন্তব্যে যেতে বিড়ম্বনায় পড়েন। ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছেবহু যাত্রীকে। অনেক যাত্রী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাসের ছাদে কেউবা খোলাট্রাকে চড়ে রওয়ানা হচ্ছেন। অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে পরিবহন মালিক-শ্রমিকরাবাড়তি ভাড়া আদায় করছেন বলে অভিযোগ করছেন যাত্রীরা।

বিআইডব্লিউটিসিকর্তৃপক্ষ জানায়, পদ্মায় প্রবল বাতাস আর তীব্র স্রোতের কারণে ফেরি ও লঞ্চপারাপারে অতিরিক্ত সময় লাগছে। প্রতিটি লঞ্চ পারাপারে সময় লাগছে কমপক্ষে ৪০থেকে ৫০ মিনিট। আর ফেরি পারাপারে সময় লাগছে কমপক্ষে ১ ঘন্টা। ঈদ উপলক্ষ্যে১৭টি ফেরি চলাচল করলেও এখন ফেরি চলাচল করছে ১৩টি। এর মধ্যে ৮টি রো রো, ৩টিকে-টাইপ ও ২টি ইউটিলিটি ফেরি। প্রবল স্রোতের কারণে যে কোন দূর্ঘটনা এড়াতেবিকেল ৪টা থেকে লঞ্চ পারাপার বন্ধ রাখা হয়।

সরেজমিনপাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে দেখা গেছে, প্রবল বাতাস আর তীব্র স্রোতের মধ্যেলঞ্চগুলো মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করছে। ছোট আকৃতির এসব লঞ্চে যাত্রীধারণ ক্ষমতা ১৩৫ থেকে ২০০ জন হলেও যাত্রী উঠানো হচ্ছে ৩ শতাধিক। এব্যাপারেলঞ্চ কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলতে চাইলে তারা কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন লঞ্চ সুপারভাইজার জানান, অতিরিক্ত যাত্রীরকারণে লঞ্চে ওভারলোডিং করা হচ্ছে। আর যাত্রীরাও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে লঞ্চেউঠছেন। সেক্ষেত্রে তাদের কিছুই করার নেই।

তবে ঘাট এলাকায় জনজট ও যানজট ঠেকাতে পর্যাপ্ত ট্রাফিক পুলিশ ও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধে ভ্রাম্যমান আদালত কাজ করছে।