চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির সভা বিএনপি-জামায়াতপন্থীদের হামলায় পন্ড

indexচট্টগ্রাম অফিস: হরতালে আদালতের কার্যক্রম নিয়ে চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের জন্য সাধারণ আইনজীবীদের ডাকা তলবি সভায় বিএনপি-জামায়াতপন্থীদের হামলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে তলবি সভা পন্ড হয়ে গেছে বলে দাবি করেছেন সভার সভাপতি বিএনপিপন্থী আইনজীবী অ্যাডভোকেট এ জেড এম মইনুল হক চৌধুরী।সোমবার দুপুর ১টায় জেলা আইনজীবী সমিতির তিন নম্বর মিলনায়তনে তলবি সভা শুরু হয়। এতে প্রায় শ আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন।অ্যাডভোকেট এ জেড এম মইনুল হক চৌধুরী বলেন, সভায় প্রথমে আমি, এরপর অতিরিক্ত পিপি পলাশ চৌধুরী ও তসলিম উদ্দিন বক্তব্য রাখেন। তসলিম উদ্দিনের বক্তব্যের এক পর্যায়ে ২০ দলীয় জোটের প্রায় শতাধিক আইনজীবী মিছিল করে মিলনায়তনে ঢোকেন। তারা এসেই চেয়ার ভাংচুর ও হামলা শুরু করেন। এতে সভা পন্ড হয়ে যায়।জেলা আইনজীবী সমিতির সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ এবং বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট আব্দুস সাত্তারের নেতৃত্বে এই হামলা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, হরতালে আদালতের কার্যক্রমে অংশ না নেয়ার সিদ্ধান্ত থাকায় গত ৬ জানুয়ারি থেকে প্রায় দুই অচল হয়ে আছে চট্টগ্রাম আদালত। এ অবস্থায় বিচারপ্রার্থী ও সাধারণ আইনজীবীদের দুর্ভোগ চরমে উঠেছে।সাধারণ আইনজীবীরা গত দুই মাস ধরে বারবার সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের জন্য আইনজীবী সমিতির কাছে দাবি জানিয়ে আসছিলেন। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ২৫২ জন সাধারণ আইনজীবী এ বিষয়ে করণীয় নির্ধারণে তলবি সভা আহ্বানের দাবি জানিয়ে গঠনতন্ত্রের ৪৬ ধারা মোতাবেক সমিতির সাধারণ সম্পাদককে চিঠি দেন। কিন্তু সাধারণ সম্পাদক তিনদিনের মধ্যে তলবি সভা আহ্বান না করায় সোমবার আইনজীবীরা নিজের‍াই সেই সভায় মিলিত হয়েছিলেন।সভায় হামলার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (প্রসিকিউশন) কাজী মুত্তাকিম মিনান বলেন, তলবি সভা আহ্বানের বিষয়ে আমাদের তার‍া কিছুই জানায়নি। সেখানে হামলা কিংবা মারামারির খবর আমাদের জানা নেই।বিএনপি-জামায়াত জোটের নেতৃত্বাধীন ২০ দলের ডাকা সাম্প্রতিক হরতালে গত দুই মাস ধরে প্রায় অচল হয়ে আছে চট্টগ্রাম আদালত। গত কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন সভা-সমাবেশের মাধ্যমে সমিতির সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের দাবি জানিয়ে আসছেন আইনজীবীরা।সার্বিক বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে মঙ্গলবার (৩ মার্চ) জরুরি বৈঠক ডেকেছে জেলা আইনজীবী সমিতি।