লঙ্কানদের বড় জয়

during the 2015 Cricket World Cup match between Sri Lanka and Scotland at Bellerive Oval on March 11, 2015 in Hobart, Australia.ক্রীড়া প্রতিবেদক: অবশেষে নিজেদের গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে জয়টাইকেই সঙ্গী করলো শ্রীলঙ্কা। স্কটল্যান্ডকে ১৪৮ রানে হারিয়েছে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের দল।৩৬৪ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরুতেই ৪৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে হোঁচট খায় স্কটিশরা। মাঝখান দিয়ে প্রতিরোধ গড়েন অধিনায়ক প্রেস্টন মমসেন ও ফ্রেডি কোলম্যান। চতুর্থ উইকেটে এই জুটি থেকে অাসে ১১৮ রান। দলীয় ১৬২ রানে মমসেনকে তুলে নেন থিসারা পেরেরা। মমসেন বিদায় নেন ব্যক্তিগত ৬০ রানে। কোলম্যানও বিদায় নেন দলীয় ১৮৯ রানে। কোলম্যান করেন ৭০ রান। এরপর স্কটিশদের অার কেউ থিতু হতে পারেনি। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ৪৩.১ ওভারে ২১৫ রানে গুটিয়ে যায় তাদের ইনিংস।
লঙ্কানদের পক্ষে তিনটি করে উইকেট নেন নুয়ান কুলাসেকারা ও দুশমন্থ চামিরা। দুটি উইকেট নেন লাসিথ মালিঙ্গা।এর অাগে শ্রীলঙ্কান ওপেনার তিলকারত্নে দিলশান আর বিস্ময় ক্রিকেটার কুমার সাঙ্গাকারার ব্যাটে ভর করে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ৩৬৩ রান সংগ্রহ করে শ্রীলঙ্কা।
বিশ্বকাপের ৩৫তম ম্যাচে হোবার্টে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস বাহিনী। ব্যাট করতে নেমে ষষ্ঠ ওভারেই থিরিমান্নের উইকেট হারায় লঙ্কানরা। যিনি বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত দুটি অর্ধশতক ও একটি শতক নিয়ে অন্যতম সফল ব্যাটসম্যান। দলীয় ২১ রানে প্রথম এই উইকেটটি তুলে নেন স্কটিশ বোলার ইভানস। লাহিরু থিরিমান্নে ২১ বলে চার রান করে ইভানসের বলে মমসেনের কাছে ক্যাচ দেন। তবে এরপর আর কোনও বিপর্যয় ঘটতে দেননি কুমার সাঙ্গাকারা ও তিলকারত্নে দিলশান। দুজনই তুলে নেন শতক। এর মধ্য দিয়ে বিশ্বকাপে টানা চার ম্যাচে শতক করে অনন্য কীর্তি গড়েছেন কুমার সাঙ্গাকারা। যা বিশ্বকাপ ছাড়াও একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে একমাত্র কীর্তি। বিশ্বকাপে শতকের সংখ্যায়ও তিনি এগিয়ে রয়েছেন। পাঁচটি শতক নিয়ে তিনি তার সঙ্গে আছেন অস্ট্রেলিয়ান লিজেন্ড রিকি পন্টিং। ৬টি শতক নিয়ে তালিকার শীর্ষে অবস্থান করছেন মাস্টার ব্লাস্টার শচীন টেন্ডুলকার।দলীয় ২১৬ রানে জশ ডেভি দিলশানের উইকেটটি তুলে নিলে সাঙ্গার সঙ্গে তার ১৯৫ রানের জুটির সমাপ্তি হয়। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ২২তম শতক তুলে বিদায় নেন লঙ্কান ওপেনার দিলশান। ইনিংসের ৩৫তম ওভারে ১০৪ রান করে আউট হন দিলশান। আউট হওয়ার আগে দিলশান ৯৯ বলে ১০টি চার আর একটি ছক্কা হাঁকান।এরপর ক্রিজে চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে ব্যাট করতে নামেন মাহেলা জয়াবর্ধনে। দলীয় ২৪৪ রানে জশ ডেভির জোড়া শিকার হন মাহেলা এবং সাঙ্গাকারা। জয়াবর্ধনে ৬ বলে ২ রান এবং সাঙ্গাকারা ৯৫ বলে ১২৪ রান করে সাজঘরে ফেরেন।এরপর দলীয় ২৮৯ রানে ১৩ বলে ২৪ রান করে টেইলরের বলে বিদায় নেন কুশাল পেরেরা। শ্রীলঙ্কা অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস ২১ বলে ৬টি ছক্কা হাঁকিয়ে ৫১ রানের একটি মিনি ঝড়ো ইনিংস খেলে স্কোরবোর্ডে দ্রুত রান যোগ করতে সাহায্য করেন। দলীয় ৩২৬ রানের মাথায় ম্যাট ম্যাচানের বলে কোলম্যানের কাছে ক্যাচ দিয়ে বিদায় হন ম্যাথুস।
স্কটল্যান্ডের পক্ষে সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট নেন জশ ডেভি। পাঁচ ম্যাচে ১৪ উইকেট নিয়ে এই বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেটের মালিক এখন তিনি। এছাড়া ইভান্স ও বেরিংটন পান দুটি করে উইকেট। একটি করে উইকেট পান টেইলর ও ম্যাচান।প্রথম রাউন্ডে এটি শ্রীলঙ্কার ষষ্ঠ ও শেষ ম্যাচ। ৫ ম্যাচে ৩ জয়ে শ্রীলংকার সংগ্রহ ছয় পয়েন্ট। অন্যদিকে ৪ ম্যাচে সবকটিতেই হেরে পুল এ পয়েন্ট টেবিলের সবচেয়ে একমাত্র জয়হীন দল স্কটল্যান্ড।
শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এর আগে একবার মুখোমুখি হয়েছে স্কটিশরা। ২০১১ সালের জুলাইতে এডিনবার্গের ওই খেলায় লঙ্কানদের কাছে ১৮৩ রানের বিশাল ব্যবধানে পরাজিত হয়েছিল তারা।