বান্দরবানে ম্রো সম্প্রদায়ের চাংক্রান ও নববর্ষ উৎসব

Bandarban MP picমোহাম্মদ আলী,বান্দরবান প্রতিনিধি:বান্দরবানের টংঙ্গ্যাবতি ইউনিয়নে ব্রিকফিল্ড এলাকায় নববর্ষের উপলক্ষে ম্রো সম্প্রদায়ের ঐতিহ্য বাহি চাংক্রান উৎসব ও মিলন মেলার উদ্বোধনী অনুষ্টানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব প্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেন তিন পার্বত্য এলাকার যারা সরকারী চাকুরী করেন,বিশেষ কারে পাহাড়ী সম্প্রদায় তাদের জন্য সরকারের নিকট আমার একটি আবেদন ছিল চাকুরী জীবিদের যেন সরকার ১৩,১৪,১৫,১৬ এপ্রিল চার দিন সরকারী ছুটির ব্যবস্থা রাখা হয়,যেন তারা তাদের ভিন্ন ভিন্ন সম্প্রদায়ের ভিন্ন ভিন্ন উৎসব গুলো ভালভাবে পালন করতে পারে। সরকার আমাদের সেই আবেদন মন্ত্রী সভায় অনুমোদন দিয়েছন। তাই আমরা সরকারকে আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ জানায়। আমরা পার্বত্যবাসী সরকারের নিকট কৃতজ্ঞ। অনুষ্টানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বান্দরান সেনা রিজিয়নের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার নকিব আহাম্মদ পিএসসি,বান্দরবানের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) মোঃ আবু জাফর,পুলিশ সুপার দেবদাস ভট্ট্যাচার্য,সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সফিকুল ইসলাম,জেলা পরিষদের সদস্য ও উৎসব উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক সিংইয়ং ম্রো ,জেলা পরিষদ সদস্য ফিলিপ ত্রিপুরা,বান্দরবান ক্ষৃদ্র নৃ-গোষ্ঠী ইনস্টিটিউট এর উপ পরিচালক বাবু মনু উ চিং মারমা,বান্দরবান ডি জি এফ আই এর কমান্ডার মহিউদ্দীন ইমাম,টংঙ্গাবতি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পূর্ণচন্দ্র ম্রো,টংঙ্গাবতি রামরি পাড়ার মেম্বার সিন্ থুই ম্রো সহ সরকারী এবং বেসরকারী উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন টংঙ্গাবতি সাক্ষয় পাড়া পাড়া কারবারি কাফরুং ম্রো। সোমবার সকাল সাড়ে ১১ টায় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর মঞ্চের সামনে উপস্থিত হলে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান অনুষ্টানের আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক ও সদস্য বৃন্দ। অনুষ্টানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি বলেন,এমনও দিন গেছে যখন এই টংঙ্গাবতির ম্রো সম্পদায় কখনো উন্নতমানের রাস্তা কাবে বলে চিন্ত না জানত না। আজ এখানে রাস্থাঘাট হওয়ার ফলে মানুষে জীবন-যাপনের মান উন্নত হয়েছে। আগামীতে এই এলাকায় সরকার বিদ্যুৎ সরবরাহ করার জন্য পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে তা দ্রুত বাস্তবায়ন করা হবে। ১৯৯৭ সালের ২রা ডিসেম্বর শান্তি চুক্তির মাধ্যমে অন্ধকার এই পার্বত্য জনপদের অন্ধকারকে দুর করে শান্তির আলো ঘরে ঘরে প্রজ্জলিত হচ্ছে। তিনি আরো বলেন একদিনে সকল কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব নয়্ জননেত্রী শেখ হাসিনা ধাপে ধাপে ঐতিহাসিক শান্তি চুক্তি বাস্থবায়ন করা হচ্ছে। জননেত্রী শেক হাসিনা বলেছেন তিনি শান্তিচুক্তির প্রতিটি দাড়ি,কমা বাস্তবায়ন করে ছাড়বে। তিনি পার্বত্য জনপদের সকল সম্প্রদায়কে এক যোগে সম্মিলিত ভাবে জননেত্রী শেখ হাসিনার আদর্শ বাস্থবায়নে এক যোগে কাজ করার আহবান জানান। পরে অনুষ্ঠানে ম্রো নৃত্য প্রদর্শন কারী ৮টি দলকে ও অনুষ্ঠানের আয়োজনে যারা শ্রম সময় দিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী পক্ষ থেকে তাদেরকে প্রায় এক লক্ষ নগদ টাকা প্রদান করেন। বান্দরবান ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট এর পক্ষ থেকে ম্রো সম্প্রদায়ের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও ম্রো সম্প্রদায়ে বাঁশ দিয়ে শক্তি পরিক্ষা,ও বলি খেলায় বিজয়ীদের নগদ অর্থ পুরস্কার হিসেবে দেওয়া হয়।