মর্নিংসান২৪ডটকম Date:২২-০৪-২০১৫ Time:৫:৩১ অপরাহ্ণ


maza cityচট্টগ্রাম অফিস: চিটাগাং রিসার্চ ইনিশিয়েটিভ (সিআরআই)’র উদ্যোগে অদ্য ২২ এপ্রিল বুধবার চট্টগ্রাম প্রেসকাব মিলনায়তনে “বিশ্বমানের চট্টগ্রাম: এগুনোর টেকসই পথ” শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠক সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের শিক্ষা বাণিজ্য উপদেষ্টা ড. হোসেন জিল্লুর রহমানের সঞ্চালনে অনুষ্ঠিত হয়। নাগরিক মতামতের ভিত্তিতে চট্টগ্রামের টেকসই উন্নয়নে “চট্টগ্রাম ২০৩০” শীর্ষক দীর্ঘমেয়াদী সামগ্রিক কৌশলপত্র প্রণয়নের উদ্দেশ্যে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন মা ও শিশু হাসপাতাল, চট্টগ্রাম’র চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. ফজলুল করিম, অর্থনীতিবিদ ও সুজন চট্টগ্রাম’র সভাপতি প্রফেসর সিকান্দার খান, চিটাগং কাবের প্রাক্তন চেয়ারম্যান ডা. মইনুল ইসলাম মাহমুদ, বাংলাদেশ মেরিন একাডেমির কমান্ড্যান্ট নৌ প্রকৌশলী ড, সাজিদ হোসেন, বিজিএমইএ এর প্রাক্তন প্রথম সহ-সভাপতি নাসির উদ্দিন চৌধুরী, নগর পরিকল্পনাবিদ স্থপতি জেরিনা হোসেন, লায়ন্স কাব ইন্টারন্যাশনাল ৩১৫বি ৪ এর ডিস্ট্রিক্ট চেয়ারপার্সন লায়ন জুনাব আলী, সমাজবিজ্ঞানি ড. মঞ্জুরুল আমিন চৌধুরী, প্রকৌশলী সুভাষ বড়–য়া, চিকিৎসক প্রফেসর ডা. মহসিন জিল্লুর করিম, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. ওবায়দুল করিম, নারী উদ্যোক্তা রওশন আরা বেগম, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন চট্টগ্রাম জেলার সহ সভাপতি মুসা বাদশা, সাদাব মাহমুদ প্রমুখ। সভায় ড. হোসেন জিল্লুর বলেন চট্টগ্রামের বৈশ্বিক ও আঞ্চলিক গুরুত্বকে সামনে রেখে “চট্টগ্রাম ২০৩০” আমাদের প্রতিপাদ্য। উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে চট্টগ্রামে, তবে উন্নয়ন যতটুকুই হোক না কেন মফস্বলীয় সীমাবদ্ধতার সীমানা পেরিয়ে খুব বেশি দূর যে আগান যায়নি এটিই বাস্তবতা। জাতীয় অর্থনীতির অন্যতম চালিকা শক্তি হিসেবে চট্টগ্রাম বন্দরের গুরুত্ব বেড়েছে বৈ কমেনি। সরকারের রাজস্ব আয়ের এক সিংহভাগও আসে এই বন্দরের কর্মকান্ডেরই ফলশ্র“তিতে। কিন্তু জাতীয় প্রাচুর্যের হেতু হয়েও চট্টগ্রামের নিজস্ব শ্রীবৃদ্ধির ইতিহাস তুলনামূলকভাবে করুণই রয়ে গেছে। জাতীয় স্বার্থেই চট্টগ্রামের দূরদর্শী উন্নয়ন পরিকল্পনা ও যথার্থ বাস্তবায়ন প্রয়োজন।
২০৩০ নাগাদ চট্টগ্রামের গ্লোবাল সিটিতে উপনীত হওয়া কোন অলীক স্বপ্ন নয়। কিন্তু এই ল্েয এগুনোর প্রচেষ্টাকে টেকসই ও কার্যকর করতে হলে তিনটি আলাদা বিষয়কে সামনে নিয়ে আসা জরুরী।
প্রথমতঃ ছিমছাম মফস্বল শহর থেকে অপরিকল্পিত মেগা-সিটি হওয়ার এই প্রক্রিয়ায় অবকাঠামো ও নাগরিক সেবা প্রয়োজনের তুলনায় নিরšতরভাবে পিছিয়েই আছে। এটি সত্যি অগ্রাধিকার-প্রাপ্ত সমস্যাগুলি সঠিকভাবেই চিহ্নিত হয়ে আছে যেমন- জলাবদ্ধতা, অপরিচ্ছন্নতা, যানজট ও সুপেয় পানির অভাব। এেেত্র সমস্যা সঠিকভাবে চিহ্নিত হয়ে থাকলেও যেখানে প্রকট ঘাটতি রয়েছে তাহল সমাধানের চিšতা ও পরিকল্পনায় খন্ডিত আমলাতান্ত্রিক চিšতার প্রাধান্য ও সমন্বিত পদপে গ্রহণে বৃহত্তর অমতা। এখানে আরও একটি সমস্যা আছে। যে নগর সীমানাকে মাথায় রেখে মাষ্টার প্ল্যান ইত্যাদি তৈরী হচ্ছে, নগর সম্প্রসারণের বা¯তবতায় এগুলি দ্রুতই আউট-অব-ডেট বা অপ্রাসংগিক ও অকার্যকর হয়ে পড়ছে।