২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ৭ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

ভাগ্নেকে গলাটিপে হত্যা, মামী গ্রেপ্তার

Saturday, 02/05/2015 @ 6:39 pm

Mirsarai-Photo-02.05.15নিজস্ব প্রতিবেদক: মিরসরাই উপজেলা সদরে আল আমিন নামে ১৯ মাস বয়সী এক শিশুকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার মামী আলেয়া বেগমের বিরুদ্ধে। এঘটনায় পুলিশ অভিযুক্ত মামীকে গ্রেপ্তার করেছে।
শুক্রবার (১মে) রাতে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে। নিহত আল আমিনের মা লায়লা বেগম জানান, প্রায় আড়াই বছর আগে উপজেলার মঘাদিয়া ইউনিয়নের আবু তোরাব এলাকার সোহেলের সাথে তার বিয়ে হয়। তার শশুর পক্ষের স্বজনরা চট্টগ্রাম শহরে থাকলেও তিনি বাবার বাড়িতে থাকতেন। বাবার বাড়িতে থাকা নিয়ে প্রায় সময় বড় ভাইয়ের স্ত্রী আলেয়া বেগমের সাথে তার ঝগড়া হতো। গত শুক্রবার (১মে) দিনে ভাবী আলেয়া বেগমের সাথে তার (লায়লা বেগমরে) কথা কাটাকাটি হয়। শুক্রবার রাতে প্রায় সাড়ে ৮টায় লায়লা বেগম শিশু আল আমিনকে ঘুম পারিয়ে ভাত খেতে যান। কিন্তু ভাত খেয়ে এসে ঘরে আল আমিনকে দেখতে না পেয়ে বাড়ির লোকজন মিলে চারদিকে খোঁজাখুজি করতে থাকে। এক পর্যায়ে শিশু আল আমিনকে বাড়ি পাশ্ববর্তী পুকুরের পানিতে ভাসতে দেখা যায়। তাকে উদ্ধার করে রাতে ১১টায় স্থানীয় মাতৃকা হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করেন।
তবে শিশু আল আমিনের ফুসফুসে ও পেটে কোন পানি নেই বলে নিশ্চিত করেন ডাক্তার। ঘুমিয়ে থাকা শিশু আল আমিন পুকুরের কি করে গেলে বাড়ির লোকজনের এমন জেরার মুখে মামী আলেয়া বেগম এক পর্যায়ে স্বীকার করে সে আল আমিনকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যার পর পুকুরে ফেলে দিয়ে আসে।
এরপর রাতেই বাড়ির পুকুর থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করে তার স্বজনরা। শনিবার (২মে) নিহত আল আমিনের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে আলেয়া বেগমকে গ্রেপ্তার করেছে। এঘটনায় নিহত শিশুর বাবা মো. সোহেল বাদি হয়ে মিরসরাই থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মিরসরাই থানার উপ-পরিদর্শক মো.অলিউল বলেন, ‘শিশুটির লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত আলোয়া বেগম আটক করা হয়েছে। হত্যার ঘটনা ঘটানোর বিষয়টি সে প্রাথামিক ভাবে স্বীকার করেছে। হত্যাকাণ্ডের কারণ কি তার তদন্তে বেরিয়ে আসবে।