ছাত্রলীগের সংঘর্ষে চবিতে ভর্তিপরীক্ষা বাতিলের দাবি

ছাত্রলীগের সংঘর্ষে চবিতে ভর্তিপরীক্ষা বাতিলের দাবি
ছাত্রলীগের সংঘর্ষে চবিতে ভর্তিপরীক্ষা বাতিলের দাবি
ছাত্রলীগের সংঘর্ষে চবিতে ভর্তিপরীক্ষা বাতিলের দাবি

চট্টগ্রাম অফিস: ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহজালাল ও শাহ আমানত হলে পুলিশের বেপরোয়া লাঠিচার্জে অনেক ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী আটকে আছেন। এ ঘটনায় ভর্তিচ্ছুসহ ৮ সাধারণ শিক্ষার্থী গুরুতর আহত হয়েছেন। তবে তৎক্ষণাৎ আহতদের নাম পাওয়া যায়নি। তারা দুপুর ২টায় ‘আই’ ইউনিটের ভর্তিপরীক্ষা দিতে এসেছিলেন।

শাহজালাল হলে মো. সাকিব নামে এক ভর্তিচ্ছু বলেন, ‘পুলিশের লাঠিচার্জের ভয়ে আমি হলের বাইরে চলে এসেছিলাম কিন্তু আমার ভর্তিপরীক্ষার যাবতীয় কাগজপত্র ওই হলেই রেখে এসেছি। পরে শুনলাম ওখানে পুলিশের লাঠিচার্জ চলছে। লাঠিচার্জে আমার আরেক বন্ধু সাদ্দামও আহত হয়েছে। তাই আমরা প্রশাসনের কাছে আজকের ভর্তিপরীক্ষা বাতিলের দাবি জানাচ্ছি।’

এদিকে পুলিশের লাঠিচার্জে ছাত্রলীগের সভাপতি মো. আলমগীর টিপুসহ সাবেক উপ-গ্রন্থনা সম্পাদক আবু পরশ আহত হয়েছেন এবং শাহজালাল হলের সামনে তাদের মোটরবাইকও পুলিশ ভাঙচুর করেছে বলে অভিযোগ করেছেন তারা।

এ ঘটনায় ছাত্রলীগ সভাপতি আলমগীর টিপু বলেন, ‘কোনো কারণ ছাড়াই তারা আমার মোটরবাইক ভাঙচুর করেছে। আমি মূলত ঘটনা শান্ত করার চেষ্টা করছিলাম।’

এ ঘটনা জানতে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই হাবিবকে ফোন করলে তিনি ব্যস্ত আছেন বলে লাইন কেটে দেন।

এর আগে সকাল ১১টার দিকে ভর্তিপরীক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা জানানোর জন্য লাইনে দাঁড়ানো নিয়ে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এতে হাটহাজারী থানার ওসিসহ উভয়পক্ষের অন্তত ৬ জন আহত হন।