চবিতে সাংবাদিকসহ দু’শিক্ষার্থীকে মারধর

চবিতে সাংবাদিকসহ দু'শিক্ষার্থীকে মারধর
চবিতে সাংবাদিকসহ দু’শিক্ষার্থীকে মারধর

চট্টগ্রাম অফিস: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) এক সাংবাদিকসহ দুই শিক্ষার্থীকে মারধর করেছে ছাত্রলীগের কর্মীরা।

রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শহীদ মিনার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

মারধরের শিকার সাংবাদিকের নাম মিজানুর রহমান। মিজানুর রহমান লোকপ্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী। আহত আরেক শিক্ষার্থীর নাম সাদ্দাম হোসাইন। সে মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষার্থী। তারা দুজন বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা কেন্দ্র থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থিত অগ্রণী ব্যাংকের শাখায় লাইনে দাঁড়িয়ে টাকা জমা দিচ্ছিল বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এসময় রবিন নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী পরে এসে আগে টাকা জমা দেওয়ার চেষ্টা করলে লাইনে থাকা সাদ্দাম হোসেন তাকে লাইনে দাঁড়িয়ে নিয়ম মেনে টাকা জমা দিতে অনুরোধ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রবিন ও আরেক ছাত্রলীগ কর্মী সুরজ ব্যাংকের এককোণায় নিয়ে সাদ্দাম হোসেনকে ধমক দিতে থাকেন। পরে সাদ্দাম হোসেন তার বন্ধু মিজানুর রহমানকে ফোনে বিষয়টি জানালে ঘটনাস্থলে আসেন মিজান।

এর মধ্যেই রবিন ও সুরজ খবর দিয়ে আরও বেশ কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মীকে ঘটনাস্থলে নিয়ে আসেন এবং সাদ্দাম হোসেনকে হুমকি দিয়ে বলেন, ‘বেশি বাড়াবাড়ি করলে কল্লা কেটে ফেলে দেব’।

এসময় মিজানুর রহমান সাদ্দাম হোসেনকে সরিয়ে শহীদ মিনার এলাকায় নিয়ে যান। পরে রবিন ও সুরজের নেতৃত্বে অন্যান্য ছাত্রলীগ কর্মীরা সেখানে গিয়ে সাদ্দাম হোসেনকে বলেন, ‘তুই যে মার্কেটিং বিভাগে পড়িস, তার প্রমাণ কী? তোর পরিচয়পত্র দেখা’। এসময় মিজান তাদের বলেন আপনাদের পরিচয়পত্র দেখাবে কেনো? পরিচয়পত্র দেখাতে হলে প্রশাসনকে দেখাবে।

এরপরই ছাত্রলীগ কর্মীরা মিজানুর রহমান ও সাদ্দাম হোসাইনকে বেধড়ক মারধর করতে থাকে। মারধরের এক পর্যায়ে মিজানুর রহমান ছাত্রলীগের স্থগিত কমিটির সভাপতি আলমগীর টিপুকে বিষয়টি ফোনে জানান। এসময় রবিন ও সুরজসহ অন্যান্য ছাত্রলীগ কর্মীরা আলমগীর টিপুকে উদ্দেশ্য করেও নানা বাজে কথা বলে ঘটনাস্থল থেকে সরে পড়ে।

রবিন ও সুরজ ছাত্রলীগের শাটল ট্রেনের বগিভিত্তিক পক্ষ সিক্সটি নাইন’র কর্মী বলে জানা গেছে।

মারধরের শিকার মিজানুর রহমান বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে প্রক্টর স্যারের কাছে লিখিত অভিযোগ জমা দিচ্ছি।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর আনোয়ার হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘আমরা বিষয়টি শুনেছি। লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর আমরা এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেব।’