জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

 

E-mail copyচট্টগ্রাম অফিস: জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ নেতৃবৃন্দ বলেছেন, ভগবান শ্রীকৃষ্ণ যুগে যুগে মানব মুক্তির জন্যে পৃথিবীতে অবতীর্ণ হয়েছেন, তার মূল আদর্শই হল মানব মুক্তি ও আত্মমানবতার সেবা। বক্তারা বলেন জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ এক সময়ে চট্টগ্রাম থেকে যাত্রা শুরু করলেও কালের প্রয়োজনে তা আজ সমগ্র বাংলাদেশে সনাতনী জনগণের প্রধান প্লাটফরমে পরিণত হয়েছে। গত রবিবার বিকেল ৫ টায় রহমতগঞ্জস্থ প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত কার্যকরী কমিটির সভায় নেতৃবৃন্দ একথা বলেন। সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি শিল্পপতি রমেশ চন্দ্র ঘোষের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিগত সভার কার্য বিবরণী পাঠ ও জন্মাষ্ঠমী উৎসবের আয় ব্যায়ের হিসাব উপস্থাপন করা হয়। সভার শুরুতে পরিষদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অমল কান্তি দাশের অকাল মৃত্যুতে এক মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করা হয়। কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট তপন কান্তি দাশের স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত কার্যকরী কমিটির সভায় আলোচনায় অংশ নেন সংগঠনের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ও রাউজান পৌরসভার সাবেক মেয়র দেবাশীষ পালিত, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট চন্দন তালুকদার, সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাজল কান্তি দত্ত, কার্যকরী সভাপতি বিমল কান্তি দে, পরিষদ নেতা ডা. মনোতোষ ধর, গৌরাঙ্গ দে, দিলীপ দাশ, শচীনন্দন গোস্বামী , কৃষ্ণ কান্তি দত্ত, মিহির কান্তি নাথ, শ্রীমতি সুপ্রিয়া ভট্টাচার্য্য, প্রকৌশলী আশুতোষ দাশ, রতন আচার্য্য, শ্রীমতি পান্না পাল, লিটন নন্দী, রতœাকর দাশ টুনু, ঝুন্টু চৌধুরী, সুকুমার দাশ প্রমূখ। সভায় আগামী নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে সারা দেশব্যাপী কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ সাংাগঠনিক সফর করে অসমাপ্ত জেলা ও মহানগর সম্মেলন সমাপ্ত করা, আত্ম মানবাতার কল্যাণে সাংবাৎসরিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্যে সংগঠনের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি শিল্পপতি অলক দাশকে আহবায়ক করে ও পরিষদ নেতা দেবাশীষ দাশগুপ্ত বাবুকে সদস্য সচিব করে সমাজ কল্যাণ পরিষদ, ডা. মনোতোষ ধরকে আহবায়ক ও লায়ন শংকর সেন গুপ্তকে সদস্য সচিব করে স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক উপ পরিষদ, অসিত করকে আহবায়ক ও সুজিত কান্তি দত্তকে সদস্য সচিব করে শিক্ষা বিষয়ক উপ পরিষদ গঠন করা হয় এবং জেএমসেন হল প্রাঙ্গনে কেন্দ্রীয়ভাবে রাস মহোৎসব উদযাপনের জন্য কাজল কান্তি দত্তকে আহবায়ক, নির্মল দাশ, শিল্পপতি বাবুল ঘোষ বাবুন, ঝুন্টু চৌধুরী, গৌতম পালিত টিকলুকে যুগ্ম আহবায়ক ও রতœাকর দাশ টুনুকে সদস্য সচিব করে ১০১ সদস্য বিশিষ্ট রাস মহোৎসব উদযাপন পরিষদ গঠন করা হয়। এতে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পরিষদ নেতা রাখাল দাশ, লায়ন দুলাল কান্তি দে, চন্দন দাশ, প্রকৌশলী বিজয় কুমার চৌধুরী কৃষাণ, রানা বিশ্বাস, স্বরুপ চৌধুরী, অরুণ চৌধুরী, লায়ন দিলীপ ঘোষ, ডা. বিধান মিত্র, চন্দন দে, আশীষ চৌধুরী, পুলক খাস্তগীর, অঞ্জন সিকদার, মনোরঞ্জন শীল, সাধন চৌধুরী, দেবাশীষ দাশগুপ্ত বাবু, রবি শংকর আচার্য্য, সুজিত কান্তি দত্ত, সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাস, নির্মল কান্তি দাশ, সলিল গুহ, বিপ্লব চৌধুরী, দেবাশীষ নাথ দেবু, গোপাল বিশ্বাস, দিলীপ বিশ্বাস, রতন রায়, সমীর কানুগো, বিশ্বজিৎ চৌধুরী বিশু, পংকজ পাল, নিখিল নাথ, সজল দত্ত, দোলন দাশ,গৌতম হাজারী, অজিত মজুমদার, সিদ্ধার্থ চৌধুরী বাবু. শিমুল সিংহ, শৈবাল দাশ সুমন, কবরী রক্ষিত. রুপালী সরকার, নিলু নাগ, চন্দনময় নন্দী টিটু, কার্তিক দ্াশ, পলাশ নাথ রনি, লিটন দত্ত প্রমূখ।