সেন্টমার্টিন উপকূলে ট্রলার ডুবি, নিহত ২১

কক্সবাজারের টেকনাফের সেন্টমার্টিনের ছেঁডাদ্বীপ এলাকায় ট্রলার ডুবির ঘটনায় আরও দুটি মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে ওই ঘটনায় মোট ২১ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হলো।

সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে মরদেহ দুটি উদ্ধার করা হয়। কোস্টগার্ডের সেন্টমার্টিন স্টেশন কমান্ডার লে. নাঈম উল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তবে মরদেহগুলোর পরিচয় জানা যায়নি।

নাঈম উল হক জানান, সেন্টমার্টিন কোস্টগার্ডের সদস্যরা টহল দেওয়ার সময় দ্বীপের দক্ষিণ-পশ্চিম পাশে সকালে সাগরে ভাসমান দুটি মরদেহ দেখতে পায়। পরে মরদেহ দুটি উদ্ধার করা হয়। কাঠের বোটে করে মরদেহ দুটি টেকনাফ মডেল থানায় হস্তান্তরের জন্য নেওয়া হয়েছে।

এখন পর্যন্ত মোট ২১ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। নৌপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার আশায় বিভিন্ন রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে গত ১০ ফেব্রুয়ারি (সোমবার) রাতে টেকনাফের মহেশখালীয়াপাড়া এলাকা দিয়ে ট্রলারে ওঠেন শতাধিক রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ। যাত্রাপথে সেন্টমার্টিন উপকূলে গিয়ে ডুবে যায় ট্রলারটি।

ট্রলারে করে মালয়েশিয়াগামীদের মধ্যে বেশিরভাগই ছিলেন নারী। দালালদের মাধ্যমে সেন্টমার্টিন উপকূল পাড়ি দিতে গিয়ে ট্রলারটি ওইদিন রাতে ডুবে গেলে প্রাথমিক ১৫ রোহিঙ্গার মরদেহ উদ্ধার করে কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনী। একইসঙ্গে আরও ৭৩ জন রোহিঙ্গাকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। ওই ঘটনায় পর আরো চারজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সোমবার আরো দুই মরদেহ উদ্ধারের মাধ্যমে সে সংখ্যা ২১-এ দাঁড়ালো।