কোকোর জানাযায় আওয়ামী লীগ অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়নি: হানিফ

indexচট্টগ্রাম অফিস: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর জানাযায় অংশ নেয়ার বিষয়ে আওয়ামী লীগ এখনও কেনো সিদ্ধান্ত নেয়নি বলে জানিয়েছেন দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। সোমবার নগরীর জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদ ময়দানে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির হিসেবে যোগ দেওয়ার পর উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি এ তথ্য জানান। কোকোর জানাযায় অংশ নেবেন কিনা এমন এক প্রশ্নের জবাবে হানিফ সাংবাদিকদের বলেন, জানাযায় অংশ নেয়ার বিষয়ে আওয়ামী লীগ কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি। জানাযায় বাধা দেয়া হবে কিনা এমন এক প্রশ্নের জবাবে হানিফ বলেন, বাধা দেয়ার প্রশ্নই উঠেনা। বাধা কেন দেয়া হবে ? জানাযা শান্তিপূর্ণভাবে নির্বিঘ্নে সম্পন্ন হবে।
হানিফ বলেন, স্বজন হারানোর ব্যাথা কি সেটা প্রধানমন্ত্রী ভাল জানেন। সেই ব্যাথা অনুধাবন করেই প্রধানমন্ত্রী স্বজন হারানো খালেদা জিয়াকে সমবেদনা জানাতে গিয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে প্রধানমন্ত্রীকে প্রবেশ করতে না দিয়ে বিএনপি শিষ্টাচারবর্হিভূত কাজ করেছে। জাতি বিএনপির এ আচরণ গ্রহণ করেনি।
খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার করা হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, গ্রেপ্তারের বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী জানে। যারা সন্ত্রাসের সঙ্গে জড়িত, ইন্ধনদাতা ও অর্থদাতা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সুনির্দিষ্ট আইন আছে। যদি কোন ব্যক্তি সন্ত্রাসের নির্দেশদাতা কিংবা অর্থদাতা হন তার বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সেই আইনে ব্যবস্থা নিতে পারবে। এর আগে প্রধান অতিথির ব্ক্তব্যে কোকোর মৃত্যুর প্রসঙ্গ উল্লেখ করে হানিফ বলেন, বিনা কারণে বেগম খালেদা জিয়া নিরীহ লোকজনকে, শিশুকে বাসে পেট্রল বোমা মেরে, আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করছেন। অনেকে বলছেন, এ ধরনের চরম অন্যায় কাজ আল্লাহ সহ্য করতে পারেননি। স্বজন হারানোর বেদনা কি সেটা বোঝাবার জন্য বেগম জিয়ার ছেলে অকালে মারা গেছেন। এসব কথা অনেকে বলছেন কিন্তু আমি বিশ্বাস করিনা।
হানিফ আলেম সমাজকে বিএনপি-জামায়াতের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে বলেন, যারা মানুষ হত্যা করছে, পুড়িয়ে মারছে তারা ইসলামের শত্রু। আলেম সমাজকে তাদের রুখে দিতে হবে। তিনি বলেন, জামায়াত প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে দেশের বিরুদ্ধে কাজ করছে। জামায়াত এখনও পাকিস্তানের সৈনিক। তারা এখন পাকিস্তানের ভাবধারায় বিশ্বাসী।
বেগম খালেদা জিয়া কখনও নামাজ পড়েছেন এমন তথ্য উপস্থিত আলেমদের কাছে আছে কিনা হানিফ জানতে চান। এসময় আলেমরা সমস্বরে না-বলে জবাব দেন।খালেদার সমালোচনা করে হানিফ বলেন, খালেদা জিয়া বিধর্মী অনেক কাজ করেন বলে প্রচার আছে। বিদেশে গিয়ে রাষ্ট্রপ্রধানদের সঙ্গে বসে খালেদা জিয়া শরাপ পান করেছেন বলে অনেকে বলেন, কিন্তু আমি বিশ্বাস করিনা। তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া সাত দফা দাবি দিয়েছিলেন। সেখানে জনগণের কোন কথা নাই। শুধু নির্বাচন কিভাবে হবে, তিনি কিভাবে ক্ষমতায় যাবেন এই স্বপ্নে তিনি বিভোর। মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম (ষষ্ঠ পর্যায়) প্রকল্পের শিক্ষক ও কেয়ারটেকারদের দিনব্যাপী ওরিয়েন্টেশন কোর্স, দাওয়াতী ও শুকরিয়া মাহফিল শীর্ষক এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) এস এম আব্দুল কাদের।অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন ইসলামী ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজাল, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, বিভাগীয় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সহকারি পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান ও সহকারি পুলিশ সুপার তারিকুল ইসলাম।