প্রভাবশালী ব্রিটিশ-বাংলাদেশি টিউলিপ-রুশনারা

tulip and rushnara_52695আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: একশ প্রভাবশালী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিকের তালিকা প্রকাশ করেছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক বেসরকারি সংস্থা ব্রিটিশ বাংলাদেশি পাওয়ার অ্যান্ড ইন্সপিরেশন (বিবিপিআই)। ২০১৫ সালের এই তালিকায় ২০টি ক্যাটাগরিতে তারাই স্থান পেয়েছেন যারা গত বছর বিভিন্ন ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রেখেছেন। আর ব্রিটিশ সার্কিট জজ (বিচারক) হিসেবে নিয়োগ পাওয়া প্রথম বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নাগরিক স্বপ্নারা খাতুন এবার বর্ষসেরা ব্যক্তিত্ব নির্বাচিত হয়েছেন।বুধবার রাতে রাজধানীর বারিধারার এক রেস্তোরাঁয় এই তালিকা প্রকাশ করা হয়। এই মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ভারপ্রাপ্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার মার্ক ক্লেইটন। আরো বক্তব্য রাখেন বিবিপিআইয়ের প্রতিষ্ঠাতা আবদাল উল্লাহ, বিচারক মণ্ডলীর সদস্য লন্ডন প্রবাসী সাংবাদিক সৈয়দ নাহাস পাশা এবং এবারের তালিকায় স্থান পাওয়া বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম টেলিকম কোম্পানি রবি এক্সিয়াটার এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট তোফায়েল রশীদ।এবারের তালিকায় স্বপ্নারা খাতুন ছাড়াও আসন্ন পার্লামেন্ট নির্বাচনে লেবার পার্টির প্রার্থী টিউলিপ সিদ্দিকী (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানার মেয়ে) ও রূপা হক, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এমপি রুশনারা আলী, টাওয়ার হ্যামলেটের মেয়র লুৎফুর রহমান, ঢাকায় নিযুক্ত সাবেক ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরী (বর্তমানে পেরুতে ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত), লিবিয়ায় প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরুনের চিফ অফ স্টাফের উপদেষ্টা মকবুল আলী, সাংবাদিক আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী ও লিসা আজিজ, তরুণ লেখক তাহমিমা আনাম, ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক নাজনীন রহমান, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের সাবেক মহাসচিব ড. আইরিন জোবাইদা খান, মুষ্টিযোদ্ধা (কিকবক্সার) রুকসানা বেগম, ব্যারোনেস পলা উদ্দিন, সাহিত্যিক মনিকা আলী, ব্যবসায়ী ইকবাল আহমদ, সেলিম আহমদ, আমিন আলী, এনাম আলী ও মামুন চৌধুরী, নতুন প্রজন্মের উদ্যোক্তাদের মধ্যে এওয়াকেনিং ওয়ার্ল্ডওয়াইডের প্রতিষ্ঠাতা শরীফ আল বান্না, মেইকআপ আর্টিস্ট রুবি হ্যামার, সদ্য নিয়োগ পাওয়া দুই কুইন্স কাউন্সেল ব্যারিস্টার আখলাক চৌধুরী ও ব্যারিস্টার মোহাম্মদ হক, ফিলিপাইনে ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত আসিফ আহমদ প্রমুখের নাম স্থান পেয়েছে।
অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ২০১২ সাল থেকে বিবিপিআই এই একশ প্রভাবশালী ব্রিটিশ-বাংলাদেশির তালিকা প্রকাশ করছে। যুক্তরাজ্যে নিজ নিজ ক্ষেত্রে সফল এবং মূলধারায় থেকে এই সাফল্য অর্জন করেছে এমন ব্রিটিশ-বাংলাদেশিদের কাজের স্বীকৃতি দিতেই প্রতিবছর এই তালিকা প্রকাশ করা হয়। প্রতিবারই নতুন নতুন মুখ যুক্ত হয়। এবারের তালিকায়ও ৪০ শতাংশ নতুন নাম যুক্ত হয়েছে। একইসঙ্গে এবারই প্রথম বর্ষসেরা ব্যক্তিত্বও ঘোষণা করা হয়েছে।ভারপ্রাপ্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্তরাজ্যের সম্পর্ক গভীর ও শক্তিশালী। বাংলাদেশের জন্ম থেকেই যুক্তরাজ্য সমর্থন দিয়ে আসছে। তিনি প্রভাবশালী ব্রিটিশ-বাংলাদেশিদের প্রশংসা করে বলেন, তারা বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাদের কাজের মাধ্যমে ব্রিটিশ সমাজকে সমৃদ্ধ করছে।সৈয়দ নাহাস পাশা জানান, গত ২৭ জানুয়ারি লন্ডনের ক্যানারি হোয়ার্ফে এক অনুষ্ঠানে এই তালিকা প্রকাশ করা হয়। ঢাকায় এই তালিকা পুনরায় প্রকাশ করার মাধ্যমে বিবিপিআই এদেশের মানুষের কাছে এই একশ প্রভাবশালীর নাম পৌঁছে দিতে চায়।